হোম / নফল ইবাদত

নফল ইবাদত

জিলক্বদ মাসের ফযীলত সম্পর্কে জানতে চাই!

প্রশ্ন আমি একজন ভারতীয় মুসলিম, এখানে বেশ কিছু আহলে আছে যারা সবকিছুকেই জাল ও জয়ীফ বলে আমাদের বিভ্রান্ত করে । ওদের প্রতি বিশ্বাস না থাকলেও আমি ব্যক্তিগত ভাবে ওদের মাসায়েল গুলো জেনে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আলিমদের থেকে জেনে নিই । ১) জিলক্বদ মাসের ফজিলত সম্পর্কে হাদীস গুলো জানতে চাই …

আরো পড়ুন

তারাবীহ নামাযের চার রাকাতের পর বসে মুনাজাত করা যাবে কি?

প্রশ্ন তারাবীহ নামাজে চার রাকাত পর পর মোনাজাত করা কি জায়াজ আছে? উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم ব্যক্তিগতভাবে একাকী মুনাজাত করলে জায়েজ আছে। তবে এক্ষেত্রে সম্মিলিত মুনাজাত প্রমাণিত নয়। তা’ই সম্মিলিত মুনাজাত করা থেকে বিরত থাকতে হবে। واما سننها: وَمِنْهَا أَنَّ الْإِمَامَ كُلَّمَا صَلَّى تَرْوِيحَةً قَعَدَ بَيْنَ التَّرْوِيحَتَيْنِ قَدْرَ تَرْوِيحَةٍ …

আরো পড়ুন

তারাবীহ সালাতের চার রাকাত পর বসে প্রচলিত “সুবহানা জিলমুলুকি ওয়ালমালাকুতু” যে দুআ পড়া হয় এর কোন ভিত্তি আছে কি?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারকাতুহ। ১) তারাবীহ নামাজের চার রাকাত পর পর কোন দোয়া পড়া সুন্নাত? ((সুবাহানা জিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি সুবাহানা জিল ইজ্জাতি ওয়াল আজমতি ওয়াল হাইবাতি ওয়াল কুদরতি ওয়াল কিবরিয়ায়ি ওয়াল জাবরুতি সুবহানাল মালিকিল হায়্যিল লাজি লা ইয়ানামু ওয়াল ইয়ামুতু চুব্বুহুন কুদ্দুসুন রব্বুনা ওয়ারাব্বুল মালাইকাতি ওয়াররুহ।))আমাদের দেশে এই …

আরো পড়ুন

নবজাতক শিশু কন্যা হলে কি কানে আজান দিতে হয় না? পুরুষ না থাকলে মহিলা আজান দিতে পারবে কি?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। ১) বাচ্চা হলে আজান দেয়া হয় কেন ? ২) মেয়ে হলে কি আজান দিতে হয় না ? ৩) যদি কোনো পুরুষ মানুষ না থাকে তাহলে কি মা নিজেই আজান দিবে ? আহালে হক মিডিয়ার প্রচার ও  প্রসার এর জন্য অনেক দুয়া ও শুভ কামনা । মোহাম্মদ ফারুক …

আরো পড়ুন

মসজিদে ইতিকাফ না করলে মহিলাদের ইতিকাফ হবে না? ডাঃ জাকির নায়েকের ভ্রান্ত বক্তব্যের জবাব

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। আপনাদের আহলে হক মিডিয়ার ওয়েব পেইজ পড়ে অনেক কিছু জানতে পারছি। এই ঋণ শোধ করার কোন উপায় নেই। আল্লাহ আপনাদের এই দ্বীনী খিদমাতের বিনিময়ে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন। এই দুআ করি। আমি জাকির নায়েকের লেকচান শুনি। তবে উদ্দেশ্য হল উনি দ্বীনে ইসলামের ব্যাপারে কী কী ভুল মাসায়েল …

আরো পড়ুন

জামাতের সাথে সালাতুত তাসবীহ নামায পড়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন নাম: নাজমুল হোসাইন From: মো: নাজমুল হোসাইন বিষয়ঃ সালাতুল তাসবীহ সালাতুল তাসবীহ নামাজ কি জামাত এর সহিত পড়া যায়। আমি এক স্থানে দেখেছি ইমাম সাহেব এই নামাজের জামাতের জন্য ঘোষণা দিল ও রাতে জামাত পরাল। যদি জামাতে পরা যায় তবে রেফারেন্স সহ উত্তর দিলে উপকৃত হব। উত্তর بسم الله …

আরো পড়ুন

তারাবীহ না পড়লে রোযা হবে না?

প্রশ্ন From: মোঃ আফসার হোসেন বিষয়ঃ তারাবীর নামাজ আস সালামু আলাইকুম, রোজা রাখার ক্ষেত্রে তারাবীর নামাজের গুরুত্ব কী? তারাবীর নামাজ না পরলে কী রোজা হবেনা? অনেকে বলে তারাবীর নামাজ না পরলে রোজা আল্লাহর দরবারে পৌছায় না। এর সত্ততা কতটুকু? উত্তর وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته بسم الله الرحمن الرحيم রোযা রাখা ফরজ। তারাবীহ পড়া সুন্নতে …

আরো পড়ুন

তারাবীহ নামাযে চার রাকাত পরে বসার সময় পড়ার জন্য নির্দিষ্ট কোন দুআ আছে কি?

প্রশ্ন From: মমিনুল হক বিষয়ঃ তারাবিহ সলাতে ৪ রাকাত পর পর দোয়া পড়ার ব্যাপারে। প্রশ্নঃ তারাবিহ সলাতে ৪ রাকাত পর পর যে দোয়াটি পড়া হয় ,ঐ দোয়াটি নাকি ভিত্তিহীন। আমরা কেন পড়ি, যদি আপনার কাছে এই দোয়া  ব্যাপারে সঠিক কোন দলিল থাকলে আমাকে রেফারেন্স সহ দিবেন ।যাতে আমি ঐ আলেমকে …

আরো পড়ুন

ঈসালে সওয়াবের কতিপয় সুন্নাহ সম্মত পদ্ধতি!

মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুর রহমান ‘ঈসালে সওয়াব’ ফারসী শব্দ। আরবীতে হবে ‘ঈসালুস সাওয়াব’ (তবে এ ক্ষেত্রে আরবীতে অন্য শব্দ বেশি ব্যবহৃত হয় যেমন ‘ইহদাউস সাওয়াব’)। এর আভিধানিক অর্থ হল সওয়াব পৌঁছানো। পরিভাষায় ঈসালে সওয়াব হল কোনো নেক আমল করে এর সওয়াব মৃত ব্যক্তিকে দান করা। ঈসালে সওয়াবের প্রেরণা কষ্টার্জিত আমলের সওয়াব …

আরো পড়ুন

ঈদের নামাযের আগে ও পরে নফল নামায পড়া যাবে না?

প্রশ্ন প্রিয় ভাই, আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। ঈদ উল অযহার দিন ফজরের নামাযের পর ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত সকল প্রকার নফল নামায নিষিদ্ধ এ বিষয়ে কোন হাদিস/দলিল আছে কি? আজ ঈদের দিন সকালে ফজরের জামায়াত শেষে ইমামের অনুপস্থিতিতে যিনি নামায পড়ালেন তিনি মুসুল্লিদের উদ্দেশ্যে নফল নামায না পড়ার …

আরো পড়ুন

আরাফার দিনের রোযা বাংলাদেশ হিসেবে না সৌদী আরবের হিসেবে রাখতে হবে?

প্রশ্ন : এবার ঈদুল আযহা হয়েছে শনিবার। শুক্রবার আমাদের এখানে অনেকেই রোযা রেখেছিলেন। কিন্তু জুমআর বয়ানে খতীবসাহেব বললেন, আজকে যারা রোযা রেখেছেন তারা হারাম কাজ করেছেন। রোযা রাখতে হবে আরাফার দিন, যেদিন আরাফারময়দানে হাজিরা উকূফ করেন। কারন হাদীস শরীফে ‘ইয়াওমে আরাফা’র রোযার কথা বলা হয়েছে। নয় যিলহজ্বের কথা বলা হয়নি। যারা ‘ইয়াওমে আরাফা’ কেয় যিলহজ্ব বলে ব্যাখ্যা করে তারা ভুল ব্যাখ্যা করে। তাঁর এসব বক্তব্যে মুসল্লীদের মাঝে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। তর্ক-বিতর্কও হচ্ছে। কুরআন-হাদীসের দলীলসহ সঠিক সমাধান জানালে উপকৃত হব। উত্তর :  بسم الله الرحمن الرحيم যিলহজ্বের প্রথম দশ দিন অতি ফযীলতপূর্ণ। এই দশদিনের আমল ও ইবাদত আল্লাহর কাছে অতি প্রিয়। বিখ্যাত সাহাবীআবু হুরায়রা রা. আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়সাল্লামের ইরশাদ বর্ণনা করেছেন- ما من أيام العمل الصالح فيهن أحب إلى الله من هذا الأيام، قيل : ولا الجهاد في سبيل الله؟ قال : ولا الجهاد في سبيل الله إلا من خرج بنفسه وماله فلم يرجع من ذلك …

আরো পড়ুন