হোম / আকিদা-বিশ্বাস / নাস্তিকতার খেয়াল মনে আসলে করণীয় কী?
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

নাস্তিকতার খেয়াল মনে আসলে করণীয় কী?

প্রশ্ন

From: হাসিব
বিষয়ঃ akida

প্রশ্নঃ
আস’সালা’মুআলাইকুম।

আমি অব্যশই মুসলমান। আল্লাহ’র প্রতি আমার পুরো ইকিন। তেমনি রাসুল(সা:) উপর। তথাপি ও সয়তান আমার মনে নানা প্রশ্ন  তুলে আল্লাহ কে নিয়ে ? এমন কি নাস্তিক ধ্যান ধারনার মত করে আল্লাহ আমায় মাপ করুক। কিন্তু আল্লাহ’র প্রতি বিশ্বাস নিশ্চিত ই আছে। আমার কি গুনাহ হবে? এমন চিন্তা মনে যে আসছে? আমি কি করে এই থেকে দূরে থাকতে পারি? মাঝে মাঝে মনে হয় এমন ধারনা হওয়ার চেয়ে মরে যাওয়া অধিক উত্তম’আমি সয়তান থেকে পানাহ চাই অনবরত! এরপর ও! দয়া করে একটা জবাব আমায় তারাতারি দিলে চির বাধিত থাকবো?
জাযাকাল্লাহ খায়রন।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

কুফরী কথা মনে আসলেই কেউ কাফির হয়ে যায় না। বা মুরতাদ হয়ে যায় না। যদি সেটি বিশ্বাসের সাথে স্বীকার করে নেয়, তাহলেই কেবল কাফির বা মুরতাদ হয়ে থাকে।

যেহেতু আপনার মনে কুফরী চিন্তা আসছে বারবার। বুঝতে হবে কাজটি করছে শয়তান। আপনাকে দ্বীনে হক থেকে সরানোর জন্য শয়তান কসরত করে যাচ্ছে।

তাই আপনাকে দ্রুত সাবধান হতে হবে।

পাঁচ ওয়াক্ত নামায জামাতের সাথে পড়ুন। প্রতি নামাযের পর হাত তুলে দুআ করুনঃ রাব্বানা লাতুজিগ কুলূবানা বা’দা ইজ হাদাইতানা ওয়াহাবলানা মিনলাদুনকা রাহমাহ, ইন্নাকা আন্তাল ওয়াহহাব”।

স্থানীয় মসজিদে বেশি সময় বেশি ব্যয় করুন। সময় পেলেই কুরআন তিলাওয়াত করুন। মসজিদের ইমাম ও খতীবের সাথে পরামর্শ করুন। বুযুর্গ কোন আলেমের বয়ান শোনার চেষ্টা করুন।

এসব বাজে চিন্তা মাথায় আসার সাথে সাথে তা পরিত্যাগ করে অন্য কাজে লিপ্ত হোন। চিন্তাকে প্রশ্রয় দিবেন না। তাহলে তা ঝেঁকে বসবে।

ইনশাআল্লাহ আল্লাহ তাআলা আপনাকে হিফাযত করবেন।

قال أبو هريرة رضي الله عنه : قال رسول الله صلى الله عليه و سلم ( يأتي الشيطان أحدكم فيقول من خلق كذا من خلق كذا حتى يقول من خلق ربك ؟ فإذا بلغه فليستعذ بالله ولينته 

হযতর আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ তোমাদের কারো কাছে শয়তান আসতে পারে, এবং সে বলতে পারে যে, এ বস্তু কে সৃষ্টি করেছে? ঐ বস্তু কে সৃষ্টি করেছে? এরূপ প্রশ্ন করতে করতে শেষ পর্যন্ত বলে বসবে, তোমাদের প্রতিপালককে কে সৃষ্টি করেছে? যখন বিষয়টি এ পর্যায়ে পৌঁছে যাবে তখন সে যেন অবশ্যই আল্লাহর কাছে আশ্রয় চায় এবং বিরত থাকে। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৩১০২, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৩৬২, মুসনাদে আবী আওয়ানা, হাদীস নং-২৩৬}

عن عائشة عن رسول الله صلى الله عليه و سلم قال : إن الشيطان يأتي أحدكم فيقولمن خلق السماوات ؟ فيقول : اللهفيقول : من خلق الأرض ؟ فيقول : الله فيقول : من خلق الله ؟ فإذا كان ذلك فليقل : آمنت بالله ورسله

হযরত আয়শা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ তোমাদের কারো কাছে শয়তান এসে বলতে পারে- আসমানসমূহ কে সৃষ্টি করেছে? সে বলবে, আল্লাহ। তারপর শয়তান প্রশ্ন করবে- জমীন কে সৃষ্টি করেছে? জবাবে সে বলবে-আল্লাহ তাআলা। তারপর শয়তান বলবে- আল্লাহকে কে সৃষ্টি করেছে? যখন বিষয়টি এ পর্যন্ত এসে যাবে তাহলে বলবে- আমি আল্লাহ ও রাসূলের উপর ঈমান এনেছি। {মুসনাদে আবী ইয়ালা, হাদীস নং-৪৭০৪, মুসনাদে আহমাদ বিন হাম্বল, হাদীস নং-২১৯১৬, মুসনাদে আব্দ বিন হুমাইদ,হাদীস নং-২১৫, আলমুজামুল কাবীর, হাদীস নং-৩৭১৯}

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

স্ত্রী স্বামীকে বলল ‘তুমি তিন তালাক’ এভাবে বললে তালাক হয়?

প্রশ্ন From: তারেক হুসাঈন বিষয়ঃ স্ত্রী স্বামীকে তিন তালাক বলা প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। …