হোম / অপরাধ ও গোনাহ / গোনাহ থেকে তওবার পর বন্ধুদের বিষোদগারে করণীয় কী?

গোনাহ থেকে তওবার পর বন্ধুদের বিষোদগারে করণীয় কী?

প্রশ্ন

আসসালামুআলাইকুম।
আমি একজন স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী।
আমি আপনাদের সাইট থেকে অনেক মাসআলা সম্পর্কে জেনেছি। তার মধ্যে পরীক্ষায় দেখে লেখা সম্পর্কে একটি। এটি জায়েজ নয় জেনেছি।এর আগে এই নাজায়েজ কাজ অনেক করেছি। জানার পর আর করিনি। অন্যকেও দেখাই নাই।এখন আমার বন্ধুকে পরীক্ষায় সাহায্য না করায় সে আমাকে ঘৃণা করছে।এ সম্পর্কিত মাসআলা তাকে বললে সে বলে আমার কথা হাস্যকর এবং আমাকে চোরও বলেছে।কারণ তার থেকে আমি দেখে দেখে পরীক্ষায় লিখেছিলাম। সেও আমার খাতা থেকে দেখেছিল। সে অন্যদেরকেও আমার কথা না শোনার জন্য বলছে।তার মতো আরও অনেকে আছে। আমি অনেক আগে থেকেই বন্ধুদেরকে বিভিন্ন গুনাহ এবং এর শাস্তি সম্পর্কে বলে আসছি। তাছাড়া আমি এক হিন্দুকে ইসলামের দাওয়াত দিয়েছিলাম।
আমি নিজেও যতটুকু সম্ভব গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার চেষ্টা করি। এর আগে আমার চরিত্র খুবই খারাপ ছিল। এখন আল্লাহর রহমতে ঠিক আছে। এসব কারণে আমাকে অনেকে কিছু বলে। খারাপ মন্তব্য করে।

এই অবস্থায় আমি কী করব?

উত্তরের জন্য অপেক্ষায় আছি।

একটু তাড়াতাড়ি উত্তর/পরামর্শ পাঠালে খুবই উপকার হতো।।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

আপনি সঠিক পথেই আছেন। মন খারাপ করার কিছু নেই। আপনি আপনার সাধ্যানুপাতে সৎ কাজের আদেশ এবং অসৎ কাজের নিষেধ করে যান। আল্লাহ সহায়।

আপনি ভাল কাজ নিজে করুন ও অন্যকে করতে উৎসাহিত দিন। অন্যরা খারাপ বলতে বলতে এক সময় ক্লান্ত হয়ে যাবে। বন্ধ করে দিবে বিষোদগার ইনশাআল্লাহ।

ভাল কাজ করতে গেলে বাঁধা আসবেই। বাঁধা আসলে দমে না গিয়ে অটল থাকা নবী রাসূলদের সুন্নত।

তাই আশাহত না হয়ে লক্ষ্যপানে এগিয়ে যান। আল্লাহ আপনার সহায়।

إِنَّمَا التَّوْبَةُ عَلَى اللَّهِ لِلَّذِينَ يَعْمَلُونَ السُّوءَ بِجَهَالَةٍ ثُمَّ يَتُوبُونَ مِنْ قَرِيبٍ فَأُولَٰئِكَ يَتُوبُ اللَّهُ عَلَيْهِمْ ۗ وَكَانَ اللَّهُ عَلِيمًا حَكِيمًا [٤:١٧] وَلَيْسَتِ التَّوْبَةُ لِلَّذِينَ يَعْمَلُونَ السَّيِّئَاتِ حَتَّىٰ إِذَا حَضَرَ أَحَدَهُمُ الْمَوْتُ قَالَ إِنِّي تُبْتُ الْآنَ وَلَا الَّذِينَ يَمُوتُونَ وَهُمْ كُفَّارٌ ۚ أُولَٰئِكَ أَعْتَدْنَا لَهُمْ عَذَابًا أَلِيمًا [٤:١٨

অবশ্যই আল্লাহ তাদের তওবা কবুল করবেন,যারা ভূলবশতঃ মন্দ কাজ করে,অতঃপর অনতিবিলম্বে তওবা করে; এরাই হল সেসব লোক যাদেরকে আল্লাহ ক্ষমা করে দেন। আল্লাহ মহাজ্ঞানী,রহস্যবিদ। আর এমন লোকদের জন্য কোন ক্ষমা নেই, যারা মন্দ কাজ করতেই থাকে,এমন কি যখন তাদের কারো মাথার উপর মৃত্যু উপস্থিত হয়,তখন বলতে থাকেঃ আমি এখন তওবা করছি। আর তওবা নেই তাদের জন্য, যারা কুফরী অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। আমি তাদের জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছি। {সূরা নিসা-১৭-১৮}

كُنتُمْ خَيْرَ أُمَّةٍ أُخْرِجَتْ لِلنَّاسِ تَأْمُرُونَ بِالْمَعْرُوفِ وَتَنْهَوْنَ عَنِ الْمُنكَرِ وَتُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ ۗ [٣:١١٠]

তোমরাই হলে সর্বোত্তম উম্মত, মানবজাতির কল্যানের জন্যেই তোমাদের উদ্ভব ঘটানো হয়েছে। তোমরা সৎকাজের নির্দেশ দান করবে ও অন্যায় কাজে বাধা দেবে এবং আল্লাহর প্রতি ঈমান আনবে। [সূরা আলে ইমরান-১১০]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা-জামিয়া ফারুকিয়া দক্ষিণ বনশ্রী ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

         

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

টাকা দিয়ে সদকায়ে ফিতির আদায় করলে আদায় হবে না?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। আলহামদুলিল্লাহ হজরত আপনার মেহনতের কারণে আমরা আহলে হাদিস ফিরকা থেকে বেঁচে থাকতে …