হোম / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / ফরজ গোসলের সময় মুখ ও নাকের গভীরে পানি পৌঁছানো কি ফরজ?

ফরজ গোসলের সময় মুখ ও নাকের গভীরে পানি পৌঁছানো কি ফরজ?

প্রশ্ন

মুফতী সাহেব। আপনি একটি প্রশ্নের উত্তরে লিখেছেন যে, ফরজ গোসল করার সময় গড়গড়া করা ও নাকের গভীরে পানি পৌঁছানো ফরজ নয় বরং সুন্নত।

কিন্তু জনৈক মাওলানা বলতেছেন আপনার এ ফাতওয়াটি ভুল। বরং গোসলের সময় গড়গড়া করা ও নাকের গভীরে পানি পৌঁছানো ফরজ। এমনটি নাকি হেদায়া কিতাবে লিখা আছে।

এ বিষয়ে আপনার মতামত আশা করছি।

 

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

আমাদের রিসার্চ সেন্টারে আসা রোযা রাখা অবস্থায় ফরজ গোসল কিভাবে আদায় করবে? এমন একটি প্রশ্ন আসে। যার লিংক হলঃ http://ahlehaqmedia.com/6336-2/

সেখানে লিখা হয় যে, “গোসলের মাঝে গরগরা করা ও নাকের গভীর পর্যন্ত পানি পৌঁছানো ফরজ নয়। বরং সুন্নত। তাই রোযা রাখা অবস্থায় যেহেতু গড়গড়া করে কুলি করলেও নাকের গভীরের নরম স্থানে পানি পৌঁছানোতে ভিতরে পানি প্রবেশ করার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই গড়গড়া ও নাকের নরম স্থানে পানি পৌঁছানোতে বেশি চেষ্টা করার প্রয়োজন নেই”।

রেফারেন্স হিসেবে তাহতাবী আলা মারাকিল ফালাহ কিতাবের এ ইবারত উদ্ধৃত করা হয়,

قوله: “غسل الفم والأنف” أي بدون مبالغة فيهما فإنها سنة فيه على المعتمد (طحطاوى على مراقى الفلاح، كتاب الطهارة، فصل بيان فرائض الغسل–102

ফিক্বহ ও ফাতওয়া সম্পর্কে ওয়াকিফহাল হানাফী সকল মুফতীগণই উক্ত ইবারত এবং লেখাটি দেখে তার সাথে একমত হবার কথা। এ বিষয়ে ভিন্নমত পোষণ করার কোন সুযোগ নেই।

কিন্তু উক্ত মাওলানা কেন এর বিরোধীতা করছেন তা আমাদের বোধগম্য নয়।

শুধু তাহতাবী আলা মারাকিল ফালাহে নয়, উক্ত মাসআলা অন্যান্য ফাতওয়া গ্রন্থেও একইভাবে এসেছে। যেমন কাছাকাছি বক্তব্য পাওয়া যায়ঃ

وفرض الغسل كل فمه، ويكفى الشرب عبا، لأن المج ليس بشرط فى الأصح (رد المحتار-1/284)

والمبالغة فيهما بالغرغرة لغير الصائم لاحتمال الفساد (رد المحتار-1/237)

ومنها المبالغة فى المضمضة والاستنشاق إلا فى حال الصوم فيرفق، لأن المبالغة فيهما من باب التكميل فى التطهير فكانت مسنونة إلا فى حال الصوم لما فيها من تعريض الصوم للفساد (بدائع الصنائع-1/112، الفتاوى التاتارخانية-1/276، رقم-377)

ফাতাওয়া শামী, এবং বাদায়েউস সানায়ে এবং ফাতাওয়া তাতারখানিয়ার পরিস্কার ইবারত প্রমাণ করছে যে, নাকে ও মুখে পানি দেবার ক্ষেত্রে মুবালাগা তথা গভীরে পানি পৌঁছানো এটি গোসলের সময় ফরজ নয়, বরং সুন্নত।

এছাড়া অন্যান্য ফাতওয়া গ্রন্থেও একই ফাতওয়া প্রদান করা হয়েছে। দীর্ঘতার কারণে তা আর এখানে উদ্ধৃত করলাম না।

স্বাভাবিক ক্ষেত্রে গোসলের সময় নাকের গভীরে পানি পৌঁছানো এবং গড়গড়া করা এটি সুন্নত। তবে রোযা রাখা অবস্থায় তা থেকে বিরত থাকাই উচিত। কারণ এতে গলার ভিতরে পানি ঢুকে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

         

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

বিবি কর্তৃক দুই তালাক দেবার পর স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনা যাবে কি?

প্রশ্ন হুজুর আমার বউ আমাকে ২ বছর আগে আমাকে না জানিয়ে ২ তালাক দিয়েছে। সে …