হোম / আখেরাত / দুইবার বিয়ে হওয়া স্ত্রী আখেরাতে কোন স্বামীর কাছে থাকবে?

দুইবার বিয়ে হওয়া স্ত্রী আখেরাতে কোন স্বামীর কাছে থাকবে?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম।

আপনার কাছে একটা প্রশ্ন হুজুর।

আমরা দেখতে পাই যে বিভিন্ন সাহাবায়ে একরাম (রাঃ) এর মৃত্যুর পর অন্যান্য সাহাবীগণ তাদের স্ত্রীদের বিবাহ করেছেন। এবং খোদ আমাদের প্রিয় নবী (সাঃ) ও আবু তালহা (রাঃ) এর বিবি আম্মাজান উম্মে সালমা (রাঃ) কে বিবাহ করেছিলেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে কাল হাশরের ময়দানে আম্মাজান উম্মে সালমা কার হুর হিসেবে জান্নাতে  যাবেন? আর যদি উত্তর নবিজী হয়ে থাকে তবে হযরত আবু তালহা কাকে পাবেন? এই প্রশ্ন অন্যান্য সকলের বেলাতেও যে স্বামী মারা গেলে যদি স্ত্রীর অন্য কারোও সাথে বিবাহ হয় তাহলে বেহেশতে উক্ত স্ত্রী কার হবে? আর যদি ২য় স্বামীর হয় তাহলে প্রথম স্বামী কাকে পাবেন বেহেশতে স্ত্রী হিসেবে?

একটু জানতে চাই সম্মানিত হুজুরের কাছে।

উত্তর

 وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

এরকম একটি প্রশ্নের উত্তর ইতোপূর্বে প্রকাশিত হয়েছে। প্রশ্ন করার আগে দয়া করে পূর্বের প্রকাশিত প্রশ্নোত্তরগুলো খোঁজ নিয়ে দেখার অনুরোধ থাকবে।

যে মহিলার একাধিক বিয়ে হয়েছে, জান্নাতে তার স্বামী কে হবে? এ বিষয়ে মতভেদ আছে। দু’টি বক্তব্য পাওয়া যায়। যথা-

১-দুনিয়ার সর্বশেষ স্বামী হবে আখেরাতের স্বামী।

২-মহিলাকে ইচ্ছেধীকার দেয়া হবে। দুই বা একাধিক স্বামীর মধ্য থেকে যাকে ইচ্ছে গ্রহণ করতে পারে।

আর  জান্নাতে যাদের স্ত্রী বা স্বামী থাকবে না, তাদের স্বামীহীন কারো সাথে বিয়ে করার অধিকার দেয়া হবে। অথবা জান্নাতী হুরের মধ্য থেকে কারো সাথে বিয়ে করার এখতিয়ার থাকবে।

আশা করি আপনি সমাধানটি বুঝতে পেরেছেন।

সহজ সমাধান। দুনিয়াতে বিয়ে হয়নি, এমন কাউকে বিয়ে করতে পারে। কিংবা জান্নাতের হুরদের মধ্য থেকে কাউকে বিয়ে করতে পারে।

এটি নিয়ে অহেতুক টেনশন করার কোন প্রয়োজন নেই।

কিভাবে জান্নাতে যেতে পারি? সেই আমল করায় মনোনিবেশ করা উচিত। জান্নাতে যাবার পর কী করবো? সেটি জান্নাতে যাবার পরই নিজের স্বচক্ষে দেখতো পাবো ইনশাআল্লাহ।

(قال الفقيه) رحمه الله: اختلف الناس في المرأة إذا كان لها زوجان في الدنيا لأيهما تكون في الآخرة؟ قال بعضهم: تكون لآخرهما، وقال بعضهم: تخير فتختار أيهما شاءت. وقد جاء في الأثر ما يؤيد قول كلا الفريقين: أما من قال هي لآخرهما فقد ذهب إلى ما روي عن معاوية بن أبي سفيان أنه خطب أم الدرداء فأبت وقالت: سمعت أبا الدرداء يحدث عن النبي صلى الله عليه وسلم أنه قال: ((المرأة لآخر زوجيها في الآخرة، وقال إن أردت أن تكوني زوجتي في الآخرة فلا تتزوجي بعدي)) وأما من قال بأنها تخير فذهب إلى ما روي عن أم حبيبة زوج النبي صلى الله تعالى عليه وسلم ((أنها سألت النبي صلى الله عليه وسلم فقالت يا رسول الله المرأة منا ربما يكون لها زوجان لأيهما تكون في الآخرة؟ قال: تخير فتختار أحسنهما خلقاً معها ثم قال صلى الله عليه وسلم ذهب حسن الخلق بخيري الدنيا والآخرة). (بستان العارفين للسمرقندى، الباب السادس والمائة: في المرأة إذا كان لها زوجان في الدنيا،-248، التذكرة، باب اذا ابتكر الرجل امرأة فى الدنيا كانت زوجته فى الآخرة-2/145، مطبوعة دار الكتب العلمية بيروت، الفتاوى الديثة، مطلب ممن تكوت الزوجة فى الجنة اذا كان لها الأزواج، مطبوعة دار المعرفة بيروت-48-49(

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

মৃতকে গোসল দেবার হুকুম কী?

প্রশ্ন আস্সালামু আলাইকুম। জনাব মুফতি সাহেব আশা করি আপনি ভাল আছেন।আমার একটি প্রশ্ন- মৃত মানুষকে …