হোম / আধুনিক মাসায়েল / ব্যাংক থেকে সুদী লোন নিয়ে ব্যবসাকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করার হুকুম কী?

ব্যাংক থেকে সুদী লোন নিয়ে ব্যবসাকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করার হুকুম কী?

প্রশ্ন

আমি একটি কন্সট্রাকশন কোম্পানিতে (প্রাইভেট কোম্পানি) চাকরি করি। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জায়গায় আমাদের কাজ চলছে। এই কাজ করতে অনেক মুলধন প্রয়োজন যা মিটাতে আমাদের কোম্পানি ব্যাংক থেকে সুদ ভিত্তিক লোন নেয়।
আমার কাজ হচ্ছেঃ
১. প্রতিদিন ব্যাংক থেকে কিছু কিছু টাকা উঠিয়ে বাংলাদেশের যে সমস্ত জায়গায় আমাদের কাজ চলছে সেখানে টা পৌঁছে দেয়া।
২. কি পরিমান টাকা ব্যাংক থেকে উঠানো হয়েছে এবং কি পরিমান পরিশোধ হয়েছে তার হিসাব রাখা।
৩. কাজ পুরো বা আংশিক কমপ্লিট হলে নিয়োগদাতা আমাদের বিল পরিশোধ করে। সেই বিল থেকে ব্যাংকের লোন পরিশোধ করা।
৪.  ব্যাংকের সাথে চুক্তিপত্র যথাযথ হয়েছে কি না তা নজর রাখা। অনেক সময় সেই চুক্তিপত্রের সাক্ষি হিসাবে সিগনেচার করা। প্রয়োজনে তাদের সাথে সুদের হার কমানোর জন্য আবেদন করা।
৫. আমরা ব্যাংকে গেলে অনেক সময় ব্যাংকের কর্মকর্তারা আপ্যায়ন হিসেবে বিভিন্ন খাবার পরিবেশন করেন। আবার বছেরের বিশেষ দিনগুলোতে তারা আমাদের গিফট হিসেবে ক্যালেন্ডার, ডায়রি, কেক পাঠায়। এগুলো আমরা গ্রহন করি।
আমার এই কাজগুলোর মধ্যে  শরিয়ত বিরোধী কিছু আছে কি না জানালে উপকৃত হব।
মোঃ ফায়সাল, যাত্রাবাড়ী।

উত্তর
بسم الله الرحمن الرحيم

সুদভিত্তিক লোন নেয়া হারাম। [ফাতাওয়া উসমানী-৩/২০৮] সেই হিসেবে উপরোক্ত প্রতিটি কাজই হারামের অন্তর্ভূক্ত। তাই এমন ডিপার্টমেন্টে চাকরী করা ছেড়ে দিয়ে কোন হালাল রুজির চাকুরী তালাশ করা আপনার জন্য জরুরী।

যদি উপরোক্ত ডিপার্টমেন্ট ছাড়া অন্য কোন জায়েজ ডিপার্টমেন্ট কাজ করতেন, তাহলে চাকুরী করা বৈধ হতো, কারণ কোম্পানীটির মূল কাজ যেহেতু জায়েজ ব্যবসা। কিন্তু আপনার কাজটি সরাসরি সুদী লেনদেন হওয়ায় তা পরিত্যাজ্য।

عبد الله بن مسعود عن أبيه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال لعن الله آكل الربا وموكله وشاهديه وكاتبه

হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ এর পিতা থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন-“যে সুদ খায়, যে সুদ খাওয়ায়, তার সাক্ষী যে হয়, আর দলিল যে লিখে তাদের সকলেরই উপর আল্লাহ তায়ালা অভিশাপ করেছেন। (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নং-৩৮০৯, মুসনাদে আবি ইয়ালা, হাদিস নং-৪৯৮১)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

দুইবার বিয়ে হওয়া স্ত্রী আখেরাতে কোন স্বামীর কাছে থাকবে?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। আপনার কাছে একটা প্রশ্ন হুজুর। আমরা দেখতে পাই যে বিভিন্ন সাহাবায়ে একরাম …