হোম / দান-সদকা-হাদিয়া / রোহিঙ্গা মুহাজির ক্যাম্পের পথে প্রান্তরে

রোহিঙ্গা মুহাজির ক্যাম্পের পথে প্রান্তরে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

কক্সবাজারে আমাদের সাথে মিলিত হলেন পাবনা থেকে আসা একটি দল। সমঝদার আসাদুর রহমান, শান্ত-সৌম্য খালেদুল ইসলাম, উম্মাহ দরদী মেহেদী হাসান, কর্মতৎপর জিহাদুল ইসলাম এবং সরলমনা হাসীব হুসাইনের ছোট্ট জামাত সহযোগী হওয়ায় সফরটা প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছিল। সাথে ছিলেন আমার ছোট ভগ্নিপতি কর্মঠ মাওলানা মুয়াজ্জেম হুসাইন।

রওয়ানা হলাম শাহপরীর দ্বীপের উদ্দেশ্যে। প্রথমে রাস্তা খরচের জন্য নিজ নিজ পথ খরচ জমা দেয়া হল আসাদ ভাইয়ের কাছে। কক্সবাজার থেকে প্রথমে লিংক রোড। ফের সেখান থেকে লোকাল মাইক্রো হয়ে টেকনাফের উদ্দেশ্যে।

নির্ঘুম রাতের ক্লান্তিময় চোখে উখিয়া থেকে টেকনাফ পর্যন্ত দেখলাম রোহিঙ্গা শরণার্থীদের করূণ হাল। লাখো মানুষের ঢল। রাস্তার দু’পাশে সারিবদ্ধ হাজারো মানুষ। কোলে শিশু সন্তান। চোখেমুখে হতাশা। অনিশ্চিত ভবিষ্যত।

পথে পড়ল কুতুপালং, পালংখালি, বালুখালি এবং উনছিপ্রাং ক্যাম্প। যতই এগুচ্ছি হতাশা ততই ভর করছে মনে। কী নিয়ে আসলাম? কী দিয়ে সান্ত্বনা দেবো সর্বস্ব হারানো এসব বনী আদমকে? আমাদের সামর্থই বা কতটুকু? জবানটা বাকরুদ্ধ হয়ে এল। প্রচন্ড হতাশায় মূক হয়ে গেলাম। প্রচণ্ড রোদে ঘামে বিলাসী শরীরটা জবুথবু।

নামলাম টেকনাফ। সিএনজি করে এবার রওয়ানা শাহপরীর উদ্দেশ্যে। রৌদ্রের প্রখরতায়, ঘামে ভিজে মনে হল ভিতরটা মুচরে উঠছে। শুরু হল কাশি। পুরো শরীর যেন জ্বলে যাচ্ছে। বমি আসবে বলে। মাথা ঘুরে পড়ে যাবো কি?

সামনে বসা খালেদুল ইসলাম ভাই দ্রুত সিএনজি থামিয়ে পানি আনতে দৌড় দিলেন। কুলি করলাম। মাথায় কিছুটা পানি ঢাললাম। ঠান্ডা পানিতে মুখটা ভাল করে ধৌত করতেই কিছুটা আরাম অনুভূত হল।

আবার যাত্রা শুরু। ধিক্কার এল নিজের উপর। এই সামান্য কষ্ট সইতে নারাজ আরামপ্রিয় শরীরটা। হায়! আমার আরাকানী বোনেরা কিভাবে পেড়োল আট নয়দিনের পথ। পায়ে হেটে। তীব্র গরমে পাহাড়ী পথ বেয়ে। কি জবাব দেবো মালিকের দরবারে?

সিএনজি থামলো দ্বীপের এপাড়। এক মসজিদে এসে দাঁড়ালাম। চারপাশে হাজারো শরণার্থী। এর মাঝে বেশ কিছু স্থানীয়রাও সেজেছে রোহিঙ্গা। মুফতে ত্রাণ নেবার আশায়।

আসল রোহিঙ্গা আর নকল রোহিঙ্গা চেনা বড় দুস্কর এমন পরিস্থিতিতে। তাই এমন পরিস্থিতিতে দান করা থেকে বিরত থাকাই উচিত বলে মনে করি। পূর্ণ যাচাই ছাড়া শুধু আবেগের বশে ত্রাণের টাকা নষ্ট করা ঠিক হবে না।

এখান থেকে শাহপরীর দ্বীপ পর্যন্ত পিচঢালা পথ ছিল এক সময়। রাস্তাটি বন্যার পানিতে ভেঙ্গে গেছে। কোথাও ভেঙ্গে বিশাল গর্ত। আবার কিছুটা রাস্তা ভাসমান। এরপর পুরোটাই পানিতে ভরপুর।

এবার পাড় হতে হবে বাঁশের সাঁকু। নড়বড়ে আঁকাবাঁকা সাঁকু পেড়িয়ে যেতে হবে ভাসমান রাস্তাটাতে। এরপর নৌকা ভাড়া করে পেড়োতে হবে বাকি পথ।

শুরু হল যাত্রা। সাঁকু পাড় হয়ে নৌকায় চড়লাম। নৌকা ছুটছে। চোখে পড়ল প্রায় ডুবন্ত এক সেতু। কারেন্ট লাইনের লম্বা খাম্বা। বুঝা গেল, এটি রাস্তা। কিন্তু পানিতে ডুবে এখন সুবিশাল নদীর আকার ধারণ করেছে। চারিদিকে শুধু পানি আর পানি। শাঁ শাঁ শব্দে অতিক্রম করছে স্পিড বোট ও ইঞ্জিন চালিত নৌকা।

নামলাম শাহপরীর দ্বীপে। নামতেই চোখে পড়ল এক মাওলানা সাহেব একদল রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের নৌকায় তুলে দিচ্ছেন। জানলাম গতকাল রাতে সীমান্ত পেড়িয়েছেন তারা। রাতে দারুশ শরইয়্যাহ মাদরাসায় ছিলেন। এখন তাদের ক্যাম্পে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মাদরাসায় এখনো অবস্থান করছেন বেশ কিছু রোহিঙ্গা শরণার্থী।

যোহর ছুঁই ছুঁই। নিয়ত করলাম যোহরটা উক্ত মাদরাসায় গিয়েই পড়ি। রওয়ানা হলাম সিএনজি যুগে। আঁকাবাঁকা পথ ও জনবসতি পেড়িয়ে গাড়ি প্রবেশ করল মাদরাসা মাঠে। এক গাড়ি বোঝাই শরণার্থী যাত্রী। অপরদিকে মাঠের এক কোণে পঁচিশ ত্রিশজনের মত রোহিঙ্গা নরনারী এবং শিশুদের জট। বিদেশী এক সংস্থা ত্রাণ দিচ্ছে তাদের।

সাথীদের কেউ কেউ এখানেই সহযোগিতা করতে চাইলেন। সিদ্ধান্ত হল, যেহেতু এখন একদল তাদের ত্রাণ দিচ্ছে তাই আমরা অন্য কোন দলকে দিবো।

যাইহোক, এগিয়ে গেলাম মাদরাসা অফিসের দিকে। অফিস রুমের দরজায় হাসিমুখে দাঁড়িয়েছিলেন উম্মাহ দরদী আলেম মাওলানা ইউসুফ মাহমূদী। সেই সাথে ঢাকা থেকে আসা আরো দুইতিনজন আলেম এগিয়ে এসে মুসাফাহা করলেন। বসালেন অফিস রুমে। মাদরাসার শিক্ষা সচিব আমাকে আগে থেকেই চিনেন বলে জড়িয়ে ধরলেন। অপরিচিত এক দ্বীপে চেনাজানা মানুষ পেয়ে মনটা খুশিতে ভরে গেল।

এবার শুরু হল আলোচনা। জানালামঃ শাহপরীর দ্বীপ আসতে আসতে মনটাই খারাপ হয়ে গেল। নিজেকে বড় অসহায় মনে হল। এই লাখো মানুষ। আমরা তাদের জন্য কী করতে পারি? আর যেভাবে বিশৃংখল ও যাচ্ছেতাইভাবে ত্রাণ বিতরণ চলছে এভাবে কি সবাই ত্রাণ পাচ্ছে? দেখা যাবে, কোন পরিবার কয়েকবার পেল। আর কোন পরিবার একবারও না।

কারণ, কোন সিষ্টেমতো নেই। আলাদা করার কোন পদ্ধতিতো নেই। যে যার মত দিয়ে যাচ্ছে। কেউ শুরুতে। কেউবা শেষে। কখনো শুরুরা বঞ্চিত। কখনো মাঝখানের। কখনো শেষের। এ ভজঘট পরিস্থিতি সামাল দেয়া কি সম্ভব? কিভাবে?

প্রায় সবাই সায় দিলেন আমার কথায়। জি, পরিস্থিতি বড়ই ঘোলাটে। এর মাঝে এক ভাই কথা বলে উঠলেন। ভাইটার নাম আব্দুর রকীব লিমন। বাড়ী কুমিল্লায়। পেশায় ব্যবসায়ী।

তিনি বললেন, আমি তাবলীগের সাথী। আমার মাথায় একটি বুদ্ধি এসেছেঃ সেটি হল, যদি পুরো ক্যাম্পগুলোকে ইজতিমা মাঠের মত ছকে আনা যায়। খিত্তাওয়ারী বন্টন করা হয়। কথার কথা আমাদের ৬৪ জিলা অনুপাতে চৌষট্টি জোন করা হয়। প্রতিটি জোনের যিম্মাদারী একেক জেলাকে দেয়া হয়। উক্ত জোনে ত্রাণ বিতরণ, দ্বীন প্রচার, মসজিদ নির্মাণ, চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ যাবতীয় দেখভাল করবে উক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলার দাতারা।

খুশি হলাম ভাইটার প্রস্তাবে। বললামঃ ভাল কথা বলেছেন আপনি। এভাবে করতে পারলে এ ভজঘট আর থাকবে না। সেই সাথে থাকবে প্রতিযোগিতা। কে কার জেলার দায়িত্বপাওয়া জোনের বেশি থেকে বেশি খিদমাত করতে পারে। এর মাধ্যমে যেমন ত্রাণ কেউ পেল, আবার কেউ পেল না, এ ঝামেলা থাকবে না, তেমনি ত্রাণ বন্টনে হিমশিম খেতে হবে না। সরকারের দায়িত্বও তখন কমে যাবে অনেক। কিন্তু এটি বাস্তবায়নে সরকারী সহযোগিতা অতিব জরুরী।

ভাইটা জানালেন, আমি চেষ্টা করছি বিষয়টি কক্সবাজার মার্কাযকে জানাতে। তারা চেষ্টা করলে সরকারী লোকদের সাথে আলাপ করে তা করতে পারে।

ভাইটার সাথে আলাপ করে ভাল লাগায় পরিচয় জানতে চাইলাম। যা বললেন, তাতে আমি হতবাক। এই ভাই এসেছিলেন ত্রাণ দিতে। ত্রাণ দেয়া শেষে যখন ফিরে যাবার সময় হল, তখন তিনি আগ্রহের বশে এসেছিলেন শাহপরীর দ্বীপ ঘুরে দেখতে। গায়ে ছিল শুধু একটি ট্রাউজার ও পাঞ্জাবী। আর কিছু নেই। কিন্তু ঘুরতে এসে যখন দেখলেন টাকার জন্য অনেকে সীমান্ত পাড় হতে পারছে না। পাড় হবার পর তাদের খানার ইন্তিজামসহ অনেক কাজ করার লোকবলের অভাব। তখন তিনি আর তার সাথীদের কাছে ফেরত যাননি। আজ দশদিন হতে চলল এক কাপড়ে মানুষটা এ দ্বীপে পড়ে আছেন। গায়ের জামা ঘামে ভিজে ছিড়ে গেছে অনেকটা। এক জামা পড়েই মানুষটা রয়ে গেলেন আজো।

কী আজীব! এমন সোনালী মানুষ আজো আছেন। শহুরে পাথুরে দিলের মানুষের মাঝে এমন কিছু মানবিক মানুষেরাও জিন্দা আছেন ভাবতেও অবাক লাগল।

কোন এক অনলাইন নিউজপোর্টাল নাকি “রোহিঙ্গা ক্যাম্পের হিরো” শিরোনামে লেখা ছাপছে। যারা ফেইসবুকে বেশি বেশি ছবি আপলোড, আর কিছুক্ষণ পর পর লাইভ দেখাতে পারে, তাদেরই উপস্থাপিত করা হয় হিরো নামে। কিন্তু এমন হাজারো হিরো প্রচারণার বাইরে রয়ে গেছেন। যারা সত্যিকার হিরো। যারা প্রচারণা নয়, মাঠের কাজেই নিজেকে নিয়োজিত করে রেখেছেন। নাওয়া খাওয়া, স্বীয় ব্যবসা বাণিজ্য সব লাঠে তুলে।

আল্লাহ তাআলা ভাইদের কবুল করেন।

এবার আলোচনার মোড় ঘুরে গেল। ব্ষিয় সীমান্ত পারাপার এবং কি ঘটছে নাফ নদীর উপারে? চাক্ষুস কতিপয় ভয়ানক কারগুজারী শিরদাঁড়ায় ঠান্ডা শিহরণ বইয়ে দিল বারবার।

এক জন বলতে লাগলেনঃ হযরত! ভয়ানক সংবাদ হল, যারা আসছেন, তারা বলছেন পাহাড়ের উপার মগ দস্যু এবং বার্মার সেনাবাহিনীরা রোহিঙ্গা সুন্দরী যুবতীদের আটকে রাখছে। সীমান্ত পাড় হতে দিচ্ছে না। দিনের পর দিন তাদের উপর অমানুষিক দৈহিক নির্যাতন চালাচ্ছে। তাদের উদ্ধার করার কেউ নেই। না সেখানে কেউ যেতে পারে। কোন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাও সেখানের খবর নিতে পারে না।

আহ! হৃদয়টা ভেঙ্গে চৌচির হয়ে গেল।

ইউসুফ মাহমূদী শুনালেনঃ গতকাল সীমান্ত পাড়ি দেবার সময় গুলি করা হয়। গুলিবিদ্ধ এক ভাইকে আমরা নিয়ে আসি। রক্তে লাল হয়েছিল নাফ নদীর পানি। ব্রিজটা রক্তে ভিজে গিয়েছিল। অবশেষে শিশুটা মারা যায়। জানাযা হয় পাশের মাদরাসা মাঠে।

লিমন ভাই যোগ করলেনঃ আজ এক ব্যক্তি মাথায় ঝুপড়ি নিয়ে আসছিল। যখন তাকে বললাম “ভাত রেডি, আসেন”। কথা শুনার সাথে সাথে মাথার ঝুপড়ি ফেলে ছুট দিল খানা খেতে। খাবার সামনে পেয়ে অনেকেই হাউমাউ করে কেঁদে দেয়। চার পাঁচদিনের অনাহার মানুষকে কি পরিমাণ বিপর্যস্ত করে দেয় তাদের না দেখলে তা কল্পনাও করা যাবে না।

কথাগুলো শুনছিলাম আর উঁকি দিচ্ছিলাম মাঠে বসে থাকা নিরাপরাধ নির্যাতিত শরণার্থীদের দিকে। আফসোস! কি অপচয় আমরা করি। কত আইটেমের খাবার আমরা খাই। আর একবেলা খাবারের জন্য আমাদের কিছু ভাইবোনেরা কিভাবে হাহাকার করছে।

বললামঃ শুনেছি আমাদের দেশের কতিপয় কুলাঙ্গার মাঝিরা জবরদস্তিমূলক এক দেড় লাখ টাকা নৌকা ভাড়া নিচ্ছে। চরম হিংস্রতার পরিচয় দিয়ে শরণার্থীদের মাল সামানা কেড়ে নিচ্ছে। অনেককে মাঝনদীতে ফেলেও নাকি দিয়েছে?

মাদরাসার শিক্ষা সচিব জানালেনঃ আমি এখানকার বিজিবি ক্যাম্পের ইমাম। আগে এমন হয়েছে অনেক। কিন্তু এখন আর করতে পারে না। কারণ, আগে রোহিঙ্গাদের সরকারী স্বীকৃতি ছিল না। কিন্তু এখন আছে। তাই এসব করার দুঃসাহস আর তারা দেখায় না। যারা এমন হিংস্রতা করেছিল, তাদের প্রত্যেককে শাস্তি দেয়া হয়েছে। মাঝিদের নৌকাও আটকিয়েছে বিজিবি। সারাদিন তাদের বেঁধেও রেখেছিল। পিটিয়েছে অনেক। কয়েকজনকে ধরে থানায়ও পাঠিয়েছে। তাই এমন জুলুম করার সাহস এখন আর কারো নেই। আমরা সাধ্যানুপাতে নৌকা পারাপারে চেষ্টা করি। এখানে যারা আছেন, তারা মিলে রাতের বেলা আমরা নৌকা ঠিক করে উপারে পাঠাই। নৌকা আসলে আমরা অভ্যর্থনা করে শরণার্থীদের মাদরাসায় নিয়ে আসি। তারপর তাদের খানার ব্যবস্থা করি। সকালে তাদের ক্যাম্পে পাঠানোর ব্যবস্থা করি।

বললামঃ এটা কি শুধু আপনারাই করেন না আরো অন্য মাদরাসার উস্তাদরা এ কাজ আঞ্জাম দেন?

বললেনঃ এখানে আরেকটি বড় মাদরাসা আছে। তারাও একাজ করছেন। এছাড়া আরো অনেকেই এ খিদমাতে নিয়োজিত।

বললামঃ মাশাআল্লাহ। অনেক বড় কাজ। আল্লাহ তাআলা এর উত্তম বদলা আপনাদের অবশ্যই দান করবেন।

যোহরের নামায শেষে খানা শেষ করলাম। সিদ্ধান্ত হল, আমাদের সাথে আসা পাবনার প্রতিনিধি দল আজকে মাদরাসায় থাকবে। রাতে সীমান্ত পাড়ি দেয়া শরণার্থীদের সহযোগিতা করবে। সকালে উনছিপ্রাং ক্যাম্পে আমরা একত্র হবো ত্রাণ কার্য পরিচালনা করতে।

শরণার্থী পারাপার ও তাদের খানা খাওয়ানো এবং ক্যাম্পে পৌঁছানো ফান্ডে আমরা ও পাবনার প্রতিনিধিরা সম্মিলিতভাবে বিশ হাজার টাকা মাদরাসা কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিলাম।

এবার বিদায় নেবার পালা শাহপরীর দ্বীপ থেকে। রওয়ানা টেকনাফের পথে। মাদরাসা মাঠে আসতেই দেখা হল, কতিপয় নারী ও শিশু রোহিঙ্গাদের সাথে। জানা গেল, তারা সম্ভ্রান্ত পরিবারে সদস্য। এখন আর ক্যাম্পে যাবার সুযোগ তাদের নেই। কারণ পানি শুকিয়ে গেছে। কংকরময় দীর্ঘ রাস্তা পেড়িয়ে ক্যাম্পে যাওয়া আজ সম্ভব নয়। এখন তারা করবে কি?

লিমন ভাই মোবাইল বের করে আলাপ করলেন স্থানীয় তাবলীগী যিম্মাদারের সাথে। এ পরিবারকে আজকের মত আশ্রয় নিতে হবে উক্ত তাবলীগী আমীরের বাসায়। রওয়ানা হলাম তাদের পৌঁছে দিতে। ছোট ছোট বাচ্চা শিশু। হাটছে। কারো মাথায় বড় বড় পুটলি। খালি পা। লিমন ভাইয়ের হাতে দুই হাজার টাকা ধরিয়ে দিয়ে বললাম, আমরাতো চলে যাচ্ছি, এখানকার খালি পা শিশুদের জন্য সামনের বাজার থেকে জুতা কিনে দিয়েন।

বললেন, আচ্ছা।

অটোযোগে রওয়ানা হলাম। আসার পথে যেখানে নৌকায় নেমেছিলাম সেখানে এসেতো হতবাক। পানি কোথায়? এতো খাঁ খাঁ করছে। দেখা যাচ্ছে ভাঙ্গা পিচ উঠে যাওয়া খানাখন্দময় পথ। অল্প একটু নৌকায় যাওয়া যাবে। বাকিটা হেটে।

নৌকায় চড়ে ভাবতে লাগলাম। আল্লাহর কি কারিশমা। সকালে দেখে গেলাম আদিগন্ত বিস্তৃত পানির দরিয়া। আর এখন খালি মাঠ। এটা কি করে সম্ভব?

সম্ভব। মহান মালিকের জন্য সবই সম্ভব। মাওলানা মুয়াজ্জেম বলে উঠলেনঃ যদি এক হাজার সেঁচ মেশিনও লাগানো হতো, তাহলে সকাল থেকে এত পানি শুকানো সম্ভব ছিল না। কিন্তু আল্লাহর কি মহিমা। মুহুর্তেই পানির এ বিশাল দরিয়া শুকিয়ে দিলেন। এরই নাম জোয়ার ভাটা!

জোয়ারে আকুল দরিয়া। ভাটায় খাঁ খাঁ মাঠ।

সমস্যা হল মাঝখানের সেই ডুবন্ত সেতুটা। যাবার সময় যাকে দেখেছিলাম প্রায় ডুবন্ত। এখন তা পূর্ণ দৃশ্যমান। সেতুর দুপাশে পানি আর হাটু অবধি কাঁদা। এখন? শিশু বৃদ্ধ, পুরুষ নারী সবার জন্য এ এক মূর্তমান আপদের নাম।

সাধু সেজে থাকলে কাজ হবে না। নামতে হল কাঁদামাটিতে। কোন মতে পাড় হলাম। এবার আর জুতা পড়ার জোঁ নেই। খালি পায়ে খানিক হাটতেই পায়ে ফোসকা পরা যোগার। এক ভাইয়ের কাছে থেকে পানি নিয়ে পা ধুয়ে জুতা পরলাম। অবশেষে সিএনজি মিলল। টেকনাফে এসে মাগরিব পরে স্থানীয় এক হোটেলে রাত্রি যাপন।

আবার কাল সকাল থেকে কাজ শুরু হবে ইনশাআল্লাহ।

ভোরবেলা বের হলাম উনছিপ্রাং এর উদ্দেশ্যে। পথে দেখা পটিয়া ফারিগ এক মাওলানার সাথে। তিনিও যাবেন উনছিপ্রাং। একসাথে বাসে উঠলাম। বাসে দেখা হল চারজন রোহিঙ্গা উলামার সাথে।

একজনের নাম কামাল হুসাইন আরকানী। যিনি শিক্ষকতা করতেন বার্মার উদং জামিয়া আশরাফুল উলুম মাদরাসায়। যার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন শাইখুল ইসলাম হুসাইন আহমাদ মাদানী রহঃ এর সাগরিদ মাওলানা আব্দুস সুবহান আরাকানী রহঃ। মাদরাসাটি পুড়িয়ে দিয়েছে মগ সৈন্যরা। অসংখ্য উলামাকে গুলি করে ও পুড়িয়ে হত্যা করেছে নরপশুরা। মংডু তাবলীগের মার্কাযও পুড়ে ছাই।

কোন মতে পালিয়ে এসেছেন এ মাওলানা। সাথে বৃদ্ধ বাবা। মা গুলিতে শহীদ হয়েছেন। শহীদ হয়েছেন ভাইটাও। তার বিবিও আলেমা। বড় কষ্টে আছেন ল্যাদা ক্যাম্পে। তার বিবি বার্মার এক বড় আলেমের মেয়ে। অজু ইস্তিঞ্জাসহ পর্দার সমস্যা হওয়ায় বিবি ক্যাম্পে থাকতে নারাজ। কিন্তু তিনি কী করবেন? কি’ইবা করতে পারেন?

আলাপ হল, অন্যান্য উলামাদের সাথেও। বার্মার এক মাদরাসার শাইখুল হাদীস পদে নিয়োজিত এক বিজ্ঞ আলেমকে দেখলাম লাজুক ভঙ্গিতে বসে থাকতে। পরিবারের সদস্যদের অনেকেই শহীদ হয়েছেন। কী বলে শান্ত্বনা দিবো? ভাষা নেই। শুধু বললামঃ আপনারা আলেম। জানেন ও বুঝেন আপনারা। আমাদের নবীও মুহাজির হয়েছিলেন। মুহাজির হলে কারো দাম কমে না রবের দরবারে। বরং বেড়ে যায়। আমাদের নবীর মর্যাদা নির্যাতিত হওয়ায়, দেশান্তরিত হওয়ায় কমেনি। বৃদ্ধি পেয়েছে কোটি গুণ। নবীর সুন্নত যিন্দায় আপনারাও মুহাজির। আল্লাহ তাআলা উত্তম বদলা অবশ্যই আপনাদের দিবেন।

ফোন নাম্বার নিলাম তাদের। তাদের হাতে পাঁচ হাজার টাকা ধরিয়ে দিয়ে নেমে পড়লাম।

হৃদয় ভরা হতাশায়। এমন হাজারো উলামা পরিবার আজ রাস্তায়। আমাদের ক্ষুদ্র সামর্থ দিয়ে কতজনকে শান্ত্বনা দিতে পারি?

সিলেট হবিগঞ্জ থেকে বন্ধুবর মাওলানা জাবের আলহুদা চৌধুরী স্থানীয় প্রায় ৩৯জন আলেমের এক কাফেলা নিয়ে এসেছেন। সেই কাফেলা বিতরণ করবে “কম্বল, শিশু খাদ্য, আপেল, তাঁবু, মশারী, কয়েল ইত্যাদি”। তাদের পরিকল্পনা পছন্দ হওয়ায় পঞ্চাশ হাজার টাকা সেই ফান্ডে জমা রেখেছিলাম। যাতে উক্ত ত্রাণ কার্যের সাথেও জড়াতে পারি।

সকাল থেকে হবিগঞ্জের কাফেলা  ত্রাণ বিতরণ করছিল উনছিপ্রাং এলাকায়। জাবের ভাই ত্রাণ নিয়ে গিয়েছেন পালংখালিতে।

নিয়ত ছিল উনছিপ্রাং ত্রাণ বিতরণে হবিগঞ্জ জামাতের সাথে শরীক হবো। কিন্তু আমরা আসতে আসতে তাদের এখানকার ত্রাণ বিতরণ সমাপ্ত হয়ে যায়।  এবার আমরা রওয়ানা হলাম উনছিপ্রাং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দিকে। কর্দমাক্ত পথ। সারি সারি শরণার্থীদের আনাগোনা। স্থানীয় স্কুল মাঠে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে বিতরণ চলছে ত্রাণ।

ছোট্ট এক শিশু সঙ্গী হল। বললাম কোথায় থাকো? ইশারায় দেখাল সামনে। হাটতে থাকলাম। বললামঃ নাম কি তোমার? কিছুই বলল না। হয়তো ভাষা বুঝে না।

কিছুদূর যাবার পর ছোট্ট বাজার পড়ল। শিশুটিকে বললামঃ কিছু খাবা? খুশিতে মাথা নাড়ল। তাকে নিয়ে ঢুকলাম এক ভাঙ্গা হোটেলে। দু’টি রুটি আর ছোলা। তৃপ্তি ভরে খেল বালকটা। তার ক্ষুধার্ত চেহারায় আমার বড় ছেলেটা যেন ভেসে উঠল। ভিজে আসা চোখটা আড়াল করলাম অন্যদের থেকে।

এমন হাজারো শিশু পেটে ক্ষুধা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে পথে পথে। কারো বাবা নেই। নেই পরিবারের কোন সদস্য। কেউ চাচার সাথে, কেউবা প্রতিবেশি কারো সাথে পাড়ি জমিয়েছে অজানার পথে। এখন ঘুরছে পথে পথে। কি হবে এদের ভবিষ্যত? কি অপরাধ এ নিষ্পাপ শিশুদের?

কোন অপরাধে আজ তারা মায়ের আদর আর বাবার স্নেহ থেকে বঞ্চিত?

যে শিশুর আজ হাসি আনন্দে জীবন কাটানোর কথা। সেই শিশুটা আজ এক পেট খাবারের জন্য হন্যে হয়ে রাস্তায় ঘুরপাক খাচ্ছে। কেন? কে দিবে এর জবাব?

আবার শুরু হল ক্যাম্পের পথে যাত্রা। কিছুদূর যেতেই আরো একদল শিশু দেখে থমকে দাঁড়ালাম। মনে পড়ল দোকান দেখলেই আমার ছেলে মুয়াবিয়ার আবদারের কথা। এরাও শিশু। মায়ের আদরের দুলাল একেকজন। কিন্তু তাদের আবদার পূরণের কেউ নেই। দোকানে রাখা ছোট পিঠার মত কি যেন বিক্রি চলছে। হাতে ধরিয়ে দিলাম শিশুদের। কয়জনকে দিবো? উপস্থিত একজনকে দিতেই আরেকজন ছুটে আসছে।

হতাশা। শুধুই হতাশা। বুকটা যেন ভেঙ্গে যাবে। কি এক ব্যাথায় চৌচির বুকের পাজর।

এইতো। এইতো সামনে ক্যাম্প। ক্যাম্পে ঢুকতেই হাজারো হাত ঘিরে ধরল। মনে চায় সব কিছু দিয়ে দেই। কিন্তু তা কি সম্ভব? নিজের ইচ্ছেকে পাথরচাপা দিয়ে এগিয়ে যাই। পাহাড়ী ঢালুর এপাশ ওপাশে অপরিকল্পিত অগণিত তাঁবু। আমরা এগিয়ে চলছি পাহাড়ের চূড়ার দিকে।

এক তাঁবু থেকে বেরিয়ে এল দাড়িওয়ালা এক যুবক। মনে হল আলেম। আপনি কি আলেম? বললেন, আমি হাফেজ। সঙ্গী করলাম তাকে। চলতে চলতে শুনলাম তার হৃদয়বিদারক কাহিনী। কতজনের কষ্টের কথা বলবো। প্রতি একজন ব্যক্তির কষ্টের দিক নিয়ে একেকটি উপাখ্যান রচনা সম্ভব।

প্রচণ্ড রোদে ঘেমে নেয়ে শরীরের অবস্থা কাহিল। উঠছিতো উঠছি। শেষ যেন নেই এ পথের। তাবুর গলি পেড়িয়ে যত সামনে যাচ্ছি ততই মনে হচ্ছে পথ যেন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। এবার শুরু হল শ্বাসকষ্ট। আমি শ্বাসকষ্টের রোগি। ডাক্তার বলেছিল অনেক দিন আগে। কিন্তু তা গায়ে মাখিনি। বুঝিওনি তীব্রভাবে। কিন্তু আজ তা টের পেলাম। ভয়ানকভাবে। যখন উপরে উঠছি হঠাৎ মনে হল, আমি আর ফিরে যেতে পারবো না। শ্বাস এখনি বন্ধ হয়ে যাবে। হাঁপাতে লাগলাম। মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস নিয়েও কুল পাচ্ছি না। আর কতদূর? আমাদের টার্গেট ছিল পাহাড়ের চুড়ার মসজিদ। কিন্তু সেই পর্যন্ত যাওয়া হবে কি? নাকি এর আগেই শ্বাস বন্ধ হয়ে যাবে?

হাঁপাতে হাঁপাতে অবশেষে পাহাড়ের চূড়ার মসজিদে উপস্থিত হলাম। ধপাস করে বসে পড়লাম মসজিদের মেঝে। ছোট্ট মসজিদ। নির্মাণের পথে। কাজ করছেন কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী মুরুব্বী। যোগ হল স্থানীয় বেশ কয়েকজন। পানি পান করলাম।

বললামঃ আপনারা যারা স্থানীয় তাদের বলছি! আজ রোহিঙ্গাদের উপর যে নির্যাতন আর নিপীড়ন নেমে এসেছে। তা আমাদের উপরও আসতে পারতো। নিজের ঘরবাড়ী, নিজের বসত ভিটা রেখে, গুলিবিদ্ধ নিহত আত্মীয়দের রেখে আজ রোহিঙ্গারা পথে নেমেছে। তাদেরও আমাদের মত ঘরবাড়ি ছিল। কিন্তু আজ তারা নিঃস্ব। সর্বস্বান্ত। তারা আমাদের মেহমান। তাদের যথাসাধ্য খিদমাত করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করা নিকৃষ্ট পশুর চেয়েও খারাপ হবে। তাই সদা খেয়াল রাখতে হবে যেন কোনভাবেই তাদের কষ্ট না হয়। আমাদের কোন আচরণে যেন তারা দুঃখ না পায়। স্থানীয়রা মাথা নেড়ে সায় দিল।

সময় কম। আবার রওয়ানা হলাম। এবার যেতে হবে উনছিপ্রাং দারুল ইরফান মাদরাসায়। সেখানে থাকা ঢাকার ইদারাতুল উলুম মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা নাজমুল হাসানকে একটি মসজিদের জন্য যায়গা দেখতে দায়িত্ব দিয়েছিলাম। তিনি কতদূর কী করেছেন তা দেখতে হবে। পাহাড় থেকে নামতে নামতে সিদ্ধান্ত নিলাম যেখানে সাধারণত ত্রাণ নিয়ে কেউ আসতে চায় না এমন সব পরিবারকে আমরা টাকা দিবো। শুরু হল টাকা বিতরণ। এক টিলা থেকে আরেক টিলায়। প্রচণ্ড খরতাপে মনে হয় মাথা ফেটে ঘিলু বেরিয়ে আসবে। সে এক অমানুষিক পরিশ্রম। কোন পরিবারে গুলিবিদ্ধ সদস্য। কোন পরিবারে কোন পুরুষই নেই। শুধু নারী ও শিশু। আমাদের কাছে যা আছে, তার পুরোটাই এক পরিবারকে দিয়ে দিলেও হয়তো এক পরিবারের প্রয়োজন পূর্ণ হবে না। কিন্তু আমাদের সামর্থ যে অপ্রতুল। তাই কাউকে এক হাজার। কাউকে আরো বেশি, কাউকে পাঁচশত। কাউকে তিনশত করে টাকা দিতে থাকলাম। অবশেষে পাড় হলাম উনছিপ্রাং ক্যাম্পের শেষ মাথা। আবার কাঁদা মাটি পাড় হয়ে উনছিপ্রাং দারুল ইরফান মাদরাসায়।

গলা শুকিয়ে কাঠ। মাদরাসায় এসে  খানিক নিঃশ্বাস নিলাম।

গোসল করায় শরীরটা হালকা হল। নামায শেষে খানা খেয়ে এবার মসজিদ নিয়ে আলোচনা শুরু। মাওলানা নাজমুলকে বললাম-মসজিদ করার মাকসাদ শুধু মসজিদ নয়। এটার মাধ্যমে আমরা দ্বীন প্রচারের কাজ করবো। যদিও ত্রাণ দিচ্ছে অধিকাংশ ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরাই। কিন্তু স্থানে স্থানে ব্র্যাকসহ অন্যান্যা সুদী এনজিওগুলো তাদের ব্যানার টানিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। তারা এ সুযোগে মানুষকে ধর্মহীন করার হীনচেষ্টাও করতে পারে। তাই আমাদের দাওয়াতী কার্যক্রম বন্ধ করা যাবে না। আমার টার্গেট মসজিদকে কেন্দ্র করে দাওয়াতী কাজ পরিচালনা করা। আমি সময় পেলেই উক্ত মসজিদে আসবো। থাকবো। দ্বীনী কথা শেয়ার করবো।

মসজিদের নাম কী হবে? জানালামঃ মসজিদে মুয়াবিয়া রাঃ। খুশি হলেন নাজমুল ভাই। সুন্দর নাম।

বললামঃ মসজিদের সাথে একটি টয়লেট এবং একটি টিউবওয়েলও লাগবে। তাই না।

বললেনঃ হ্যাঁ, এছাড়া পূর্ণ হবে না।

ঠিক আছে। কত টাকা হলে এ তিনটি কাজ হতে পারে? জানালেন এক লাখ টাকা হলে হয়ে যাবে।

এক লাখ টাকা মাওলানার হাতে বুঝিয়ে দিলাম। বললামঃ আপনি যায়গা দেখে কাজটি সম্পন্ন করে রাখুন। আমি আগামী সপ্তাহের দিকে আবার আসবো। ইনশাআল্লাহ উক্ত মসজিদে এসে নামায পড়বো।

উক্ত মাদরাসার ত্রাণ ফান্ডে দুই হাজার টাকা অনুদান দিয়ে বিদায় নিলাম।

এবার যাত্রা পালংখালীর দিকে। পালংখালীতে পৌঁছে কয়েকজন রোহিঙ্গা আলেমকে কিছু সহযোগিতা করে ছুটলাম কুতুপালং পানে। সেখানে অবস্থান করছিল বার্মা থেকে আগত কিছু সম্ভ্রান্ত পরিবারের সদস্য। বার্মাতে যাদের ছিল বিশাল ব্যবসা। নিজস্ব গাড়ি বাড়ি। কিন্তু আজ পথের ফকীর। কুতুপালং বাজারে দেখা হল ভাইদের সাথে। আগে থেকেই ফোনে যোগাযোগ হওয়ায় সহজ হয়েছিল। এক চা দোকানে বসে তাদের শান্ত্বনা দিলাম। মানুষগুলোর চেহারায় আভিজাত্য পরিষ্ফুটিত। গত বছর তাদের এক পরিবার পালিয়ে এসেছিলেন। দুই মেয়ে ঢাকায় এক মহিলা মাদরাসায় পড়াশোনা করছে। সেখান থেকেই তাদের ব্যাপারে জানা। এবার বাকি পরিবার এসেছে। কথাবার্তায় পরিস্কার শিক্ষিত। সম্ভ্রান্ত। এখানকার ছোট ছোট তাঁবুতে থাকা তাদের জন্য অস্বস্থিকর। কিন্তু ভাগ্য মেনে তাই করছেন। আগে দান করতেন। এখন দান পাবার আশায় বসে থাকেন। কিছু হাদীসের বাণী শুনিয়ে দশ হাজার টাকা দিলাম পাঁচ পরিবারকে।

মাগরিব নামাযের আজান বেজে উঠল মুয়াজ্জিনের কণ্ঠে। নামায শেষে রাস্তায় দাঁড়ালাম সিএনজির আশায়। হাজারো শিশুর মাঝখানে আটকে গেলাম। টাকাতো আর নেই। খালি হাত। কি করতে পারি?

এক পিচ্ছি মেয়ে নির্বাক নয়নে তাকিয়ে আছে। কাছে গেলাম। জড়িয়ে ধরলাম বুকে। বললামঃ আম্মু! আমার কাছেতো কিছু নেই। কি দিবো তোমাকে? আমাকে মাফ কর। মাথায় চুমু খেলাম। মনের অজান্তে আমার চোখ দিয়ে অঝর ধারায় নেমে এল অশ্রু। চোখ মুছে বললামঃ আম্মু তুমি কিছু খাবে। মাথা নাড়ল। দোকানে নিয়ে গেলাম। মুড়ির প্যাকেট ঝুলছে দোকানে। হাতে ধরিয়ে দিতেই মুখে হাসির ঝিলিক ফুটে উঠল। মনে হল আমি যেন বিশ্বজয় করেছি। এতোটা খুশি আচ্ছন্ন করল। সাথে সাথে আরো অজস্র হাত এগিয়ে এল। একে একে দোকানের সব ক’টি মুড়ির প্যাকেটই বিলি করা শেষ। কিন্তু চাহিদা শেষ হয়নি। অবশেষে তাদের কাউকে জড়িয়ে ধরে, কারো মাথায় হাত  বুলিয়ে, কারো কাছে ক্ষমা চেয়ে ছুটলাম সিএনজি পানে। সিএনজি ছুটছে কক্সবাজারের পথে। মনটা পড়ে রইল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের তাঁবুতে, গলিতে-রাস্তায়। এক রাশ বেদনা, অব্যক্ত কষ্টের যাতনা নিয়ে ফিরে চললাম ঢাকার পথে।

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

সদকাতুল ফিতর কতটুকু আদায় করবে?

ডাউনলোড লিংক ১ ডাউনলোড লিংক ২ ডেইলিমোশন থেকে দেখতে ক্লিক করুন ইউটিউব থেকে দেখতে ক্লিক …