হোম / জুমআ ও ঈদের নামায / তাকবীরে তাশরীক ফরজ নামাযের পর কতবার বলবে? একবার না তিনবার?

তাকবীরে তাশরীক ফরজ নামাযের পর কতবার বলবে? একবার না তিনবার?

প্রশ্ন

আসসালামুআলাইকুম,

হযরত, আমার একটি বিষয় জানা দরকার। কোরবানির কয়েকদিন শুরু থেকে কয়েকদিন পরে পর্যন্ত প্রতি নামাজের পরে সবাই তাকবির বলে  “আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু আল্লাহুআকবার,আল্লাহুআকবার অলিল্লাহিলহামদ” এখানে আবার লেখার ক্ষেক্রে বা বলার ক্ষেত্রে উচ্চারগত সমস্যা হতে পারে, যদি ভুল হয় ক্ষমার দৃস্টিতে দেখার অনুরোধ রইলো।
এখানে আমার প্রশ্ন হলো এই তাকবির প্রতি ফরজ নামের পরে কতবার বলতে হবে? একবার নাকি তিনবার? অনেকেই বলে এই তাকবির ৩বার বলতে হবে। কিন্তু আমাদের এখানের ঈমাম সাহেব বছর খানেক আগে বলেছিলো, এই তাকবির চাইলে সারাদিনও পরতে পারবে কোন সমস্যা নেই,কিন্তু ফরজ নামাজের পরে ৩ বার বলা সুন্নত,এটা কোন হাদীস দ্বারা প্রমাণিত নয়, এমনিতে চাইলে সে পড়তে পারবে, কিন্তু সুন্নত মনে করে ৩বার পড়তে পারবে না। তবে একবার পড়া ওয়াজিব। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাচ্ছি,৩বার সুন্নত এটা কি ঠিক? নাকি ৩বার পড়া সুন্নত এটার কোন ভিত্তি নেই?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

আপনাদের এলাকার ইমাম সাহেব যা বলেছেন তা সম্পূর্ণ সঠিক। তাকবীরে তাশরীক নির্ধারিত দিনসমূহে প্রতি ফরজের পর শব্দ করে একবার পড়া ওয়াজিব। তিনবার বলার কোন ভিত্তি নেই। সুন্নত মনে করে পড়লে মাকরূহ হবে। [ফাতাওয়া নাওয়াজেল-১৪/৫৯৪]

عن جابر بن عبد الله رضى الله عنه قال: كان رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا صلى الصبح من غداة عرفة يقبل على أصحابه، فيقول: على مكانكم، ويقول: “الله أكبر الله اكبر، لا إله إلا الله، والله أكبر الله أكبر ولله الحمد” فيكبر من غداة عرفة إلى صلاة العصر من آخر أيام التشريق، (سنن الدار قطنى، باب العيدين-2/38، رقم-1721)

أما صفته فإنه واجب وأما عدده وما هيته فهو أن يقول مرة واحدة: “الله أكبر الله اكبر، لا إله إلا الله، والله أكبر الله أكبر ولله الحمد” (الفتاوى الهندية-1/102)

والتكبير أن يقول مرة واحدة: “الله أكبر الله اكبر، لا إله إلا الله، والله أكبر الله أكبر ولله الحمد” وهو عقيب الصلاة المفروضات على المقيمين فى الأمصار فى الجماعات المستحبة عند ابى حنيفة (الهداية-1/175)

والتكبير أن يقول: مرة واحدة، وهو قول عمر بن الخطاب وابن مسعود، وقولنا: هو مذهب عمر بن الخطاب وعبد الله بن مسعود (عينى شرح الهداية-1/1030)

وياتى به مرة وما زاد فهو مستحب، قاله العينى فى شرح التحفة، واقره فى الدر، وفى الحموى عن القراحصارى: الإتيان به مرتين خلاف السنة، (حاشية الطحطاوى على مراقى الفلاح، كتاب الصلاة، باب احكام العيدين-539)

(وَيَجِبُ تَكْبِيرُ التَّشْرِيقِ) فِي الْأَصَحِّ لِلْأَمْرِ بِهِ (مَرَّةً) وَإِنْ زَادَ عَلَيْهَا يَكُونُ فَضْلًا قَالَهُ الْعَيْنِيُّ.

وفى رد المحتار: (قَوْلُهُ وَإِنْ زَادَ إلَخْ) أَفَادَ أَنَّ قَوْلَهُ مَرَّةً بَيَانٌ لِلْوَاجِبِ، لَكِنْ ذَكَرَ أَبُو السُّعُودِ أَنَّ الْحَمَوِيَّ نَقَلَ عَنْ الْقَرَاحَصَارِيِّ أَنَّ الْإِتْيَانَ بِهِ مَرَّتَيْنِ خِلَافُ السُّنَّةِ، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب العيدين-3/61-62)

وفى مجمع الأنهر: إن زاد فقد خالف السنة ولعل محله إذا أتى به على أنه سنة، واما إذا أتى به على أنه ذكر مطلق فلا، (حاشية الطحطاوى على مراقى الفلاح، كتاب الصلاة، باب احكام العيدين-539

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

তালাকের আবেদনের প্রেক্ষিতে “আরেকবার বললে যা বলছো তা’ই হবে” বলার দ্বারা তালাক হয় কি?

প্রশ্ন বরাবর, মুহতামিম সাহেব, আসসালামু আলাইকুম। সম্মনিত মুফতি সাহেব। যদি স্বামী স্ত্রী ঝগড়ার এক পর্যায়ে …