হোম / জুমআ ও ঈদের নামায / কতগুলো শর্ত পাওয়া গেলে সেই স্থানে জুমআ পড়া যাবে?

কতগুলো শর্ত পাওয়া গেলে সেই স্থানে জুমআ পড়া যাবে?

প্রশ্ন

কোন স্থানে জুম্মার নামাজ হওয়ার জন্য শর্তগুলো দালিলিক ভাবে জানালে খুব উপকার হত।

মোঃআরিফ কুয়েত আর্মিতে থেকে

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

কোন স্থানে জুমআর নামায বিশুদ্ধ হবার জন্য বেশ কিছু শর্ত রয়েছে। যথা-

শহর বা উপশহর হতে হবে। গ্রামে বা জনমানবহীন বিয়াবানে জুমআর নামায শুদ্ধ হবে না।

জামাআত হতে হবে।

যোহরের সময় হতে হবে।

সকলের জন্য আম অনুমতি থাকতে হবে।

খুতবা দিতে হবে। [দ্রষ্টব্য-হেদায়া-১/১১৪-১১৬, শরহে নুকায়া-১/১২৩-১২৫, কাবীরী-৫৪-৫৫১]

গ্রাম বলতে এমন এলাকাকে বুঝায়, যেখানে রাষ্ট্রীয় কোন প্রতিনিধি, মানুষের নিত্তপ্রয়োজনীয় আসবাব সহজলভ্য নয়। এমন সুবিধাবঞ্চিত এলাকাকে মূলত গ্রাম বলা হয়।

সুতরাং আমাদের বাংলাদেশের প্রচলিত গ্রাম যেখানে রাষ্ট্র প্রতিনিধিসহ আবশ্যকীয় সুবিধা বিদ্যমান, সেটাকে গ্রাম বলা যাবে না। বরং তা উপশহরের স্থলাভিষিক্ত হবে।

তবে খাগড়াছড়ি, বান্দরবনের গহীন জঙ্গলে বসবাসকারীগণ গ্রামের বাসিন্দা। তাদের উপর জুমআ আবশ্যক নয়।

সেই হিসেবে জনবহুল এলাকা থেকে দূরের মরু বিয়াবানেও জুমআর নামায পড়া যাবে না। যেমন সেনাবাহিনীর কোন ক্যাম্প যা গহীন পাহাড়ে  স্থাপন করা হল। কিংবা মরু অঞ্চলের কোন বিয়াবনে ট্রেনিং এর জন্য সেনা ক্যাম্প করা হল। এসব স্থানে জুমআ পড়া যাবে না। যোহরের নামায আদায় করবে। কারণ, তা শহর বা উপশহর নয়।

عَنْ عَلِيٍّ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ قَالَ: «لَا جُمُعَةَ وَلَا تَشْرِيقَ إِلَّا فِي مِصْرٍ جَامِعٍ»

হযরত আলী রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, শহর ছাড়া জুমআ ও ঈদের নামায নেই। [মুসনাদে ইবনুল জা’দ, হাদীস নং-২৯৯০, তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-১১৫৪, মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-৫১৭৫, মারিফাতুস সুনান ওয়াল আছার, হাদীস নং-৬৩৩০, সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-২৬১৫, মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫০৬৪]

عَنْ حُذَيْفَةَ، قَالَ: «لَيْسَ عَلَى أَهْلِ الْقُرَى جُمُعَةٌ، إِنَّمَا الْجُمَعُ عَلَى أَهْلِ الْأَمْصَارِ، مِثْلِ الْمَدَائِنِ»

হযরত হুযাইফা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, গ্রামে জুমআর নামায নেই। জুমআ হবে শহরে। যেমন মাদায়েন। [মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫০৬০]

ইমাম শাহ ওয়ালী উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী রহঃ বলেনঃ

وَقد تلقت الْأمة تلقيا معنويا من غير تلقي لفظ أَنه يشْتَرط فِي الْجُمُعَة الْجَمَاعَة وَنَوع من التمدن، وَكَانَ النبى صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ. وخلفاؤه رَضِي الله عَنْهُم. وَالْأَئِمَّة المجتهدون رَحِمهم الله تَعَالَى يجمعُونَ فِي الْبلدَانِ، وَلَا يؤاخذون أهل البدو، بل وَلَا يُقَام فِي عَهدهم فِي البدو، ففهموا من ذَلِك قرنا بعد قرن وعصرا بعد عصر أَنه يشْتَرط لَهَا الْجَمَاعَة والتمدن

উম্মত শাব্দিকভাবে না হলেও মৌনভাবে এ বিষয়টি নির্ধারণ করেছে যে, জুমআর জন্য  জামাআত এবং এক প্রকার সভ্যতা [শহর]থাকা শর্ত। আর নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং খুলাফায়ে রাশেদীন এবং আইয়িম্মায়ে মুজতাহিদীন শহরেই জুমআ কায়েম করতেন। আর গ্রামের অধিবাসীদের এ বিষয়ে কোন দোষারোপ করতেন না। [না পড়ার কারণে] শুধু তাই নয়; তাদের জমানায় গ্রামে জুমআর নামায আদায় করা  হতো না।

সুতরাং এর মাধ্যমেই যুগের পর যুগ, কালের পর কাল ধরে তারা বুঝে নিলেন যে, জুমআর নামায শুদ্ধ হবার জন্য শর্ত হল জামাআত ও সভ্যতা থাকা। [হুজ্জাতুল্লাহিল বালিগা-২/৩০,রশীদীয়া, বাইরুত ছাপা-২/৪৭]


يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا نُودِيَ لِلصَّلَاةِ مِن يَوْمِ الْجُمُعَةِ فَاسْعَوْا إِلَىٰ ذِكْرِ اللَّهِ وَذَرُوا الْبَيْعَ ۚ ذَٰلِكُمْ خَيْرٌ لَّكُمْ إِن كُنتُمْ تَعْلَمُونَ [٦٢:٩

মুমিনগণ,জুমআর দিনে যখন নামাযের আযান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের পানে ত্বরা কর এবং বেচাকেনা বন্ধ কর। এটা তোমাদের জন্যে উত্তম যদি তোমরা বুঝ। ( সুরা জুমা আয়াত ৯ )
আই আয়াতের মধ্যকার যিকরুল্লাহ দ্বারা প্রায় সকল মুফাসসিরদের মতে খুতবা উদ্দেশ্য । (তাফসিরে রাযি ১/৪৪৬, তাফসিরে রুহুল মাআনি ২৮/১০২, তাফসিরে ইবনে আব্বাস রাঃ)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

         

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

ঈদের রাতে অসুস্থ্য কুরবানীর পশু কুরবানীর নিয়তে জবাই করলে কুরবানী হবে কি?

প্রশ্ন আমার প্রশ্ন হল, কুরবানীর জন্য ক্রয় করা একটি পশু ঈদের আগের দিন রাতে হঠাৎ …