হোম / আদব ও আখলাক / ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ে শরয়ী পদ্ধতি কী?

ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ে শরয়ী পদ্ধতি কী?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম |

ঈদ পরবর্তী কারো সাথে দেখা হলে আমরা “ঈদ মুবারক” বলি । মুসাফাহা করে কোলাকোলি করি । আবার অনেকে (taqabbal allahu minna wa minkum) تقبل الله منا ومنكم এই দোআ করে।

ঈদ এর সুভেচ্ছা বিনিময়ের সুন্নত পদ্দতি কি ?

বিস্তারিত জানালে খুশি হব ।

আহালে হক মিডিয়ার প্রচার ও  প্রসার এর জন্য অনেক দুয়া ও শুভ কামনা রইল ।

মোহাম্মদ ফারুক
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ।
বাসা : খিলক্ষেত , তালের টেক,
ঢাকা – ১২২৯ ।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

ঈদের সময় তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকুম বলা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সাহাবায়ে কেরামগণ থেকে প্রমাণিত।

আর ঈদ উপলক্ষ্যে বিশেষ মুসাফাহা বা কুলাকুলি প্রমাণিত নয়। এটিকে ঈদের সুন্নত মনে করলে তা বিদআত হবে।

তবে এমনিতে কারো সাথে অনেক পর দেখা হওয়া হিসেবে মুসাফাহা ও কুলাকুলি করা সুন্নত। সেই হিসেবে ঈদের পর যদি কারো সাথে এমন দেখা হয়, তাহলে তার সাথে মুসাফাহা ও কুলাকুলি করতে কোন সমস্যা নেই।

আপনার ঈদ মুবারক হোক। এরকম দুআ হিসেবে যদি “ঈদ মুবারক” বলে থাকে তাহলে এতেও কোন সমস্যা আছে বলে মনে হচ্ছে না। তবে এটিকে  সুন্নত, বা মুস্তাহাব মনে করে বললে বিদআত হবে। এমনিতে সৌজন্যতা হিসেবে বলা যেতে পারে। বাকি তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়ামিনকুম বলাটাই যেহেতু প্রমাণিত। তাই এ বাক্যটিই বলা উচিত।

عَنْ خَالِدِ بْنِ مَعْدَانَ قَالَ: لَقِيتُ وَاثِلَةَ بْنَ الْأَسْقَعِ فِي يَوْمِ عِيدٍ , فَقُلْتُ: تَقَبَّلَ اللهُ مِنَّا وَمِنْكَ , فَقَالَ: ” نَعَمْ، تَقَبَّلَ اللهُ مِنَّا وَمِنْكَ ” , قَالَ وَاثِلَةُ: ” لَقِيتُ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ عِيدٍ فَقُلْتُ: تَقَبَّلَ اللهُ مِنَّا وَمِنْكَ , قَالَ: ” نَعَمْ , تَقَبَّلَ اللهُ مِنَّا وَمِنْكَ “

হযরত খালিদ বিন মা’দান থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি ওয়াছিলা বিন আসক্বাহ রাঃ এর সাথে ঈদের দিন সাক্ষাৎ করলাম। তখন আমি তাকে বললামঃ তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকা। তখন তিনি বললেনঃ হ্যাঁ, তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়ামিনকা। ওয়াছিলা আরো বললেনঃ আমি একদা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সাথে ঈদের দিন সাক্ষাৎ করেছিলাম। তখন বলেছিলামঃ তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়ামিনকা। তখন তিনিও বলেছিলেনঃ হ্যাঁ, তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়ামিনকা। [সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৬২৯৪,মাযমাউয যাওয়ায়েদ, হাদীস নং-৩২৫৫]

ইবনুত তুরকুমানী রহঃ বলেনঃ

قلت في هذا الباب حديث جيد اغفله البيهقى وهو حديث محمد بن زياد قال كنت مع ابى امامة الباهلى وغيره من اصحاب النبي صلى الله عليه وسلم

فكانوا إذا رجعوا يقول بعضهم لبعض تقبل الله منا ومنك * قال احمد بن حنبل اسناده اسناد جيد

আমার বক্তব্য হল, এ বিষয়ে জাইয়্যিদ হাদীসও রয়েছে। যা ইমাম বায়হাকী রহঃ উল্লেখ করেননি। সেটি হল, মুহাম্মদ বিন যিয়াদ এর হাদীস। তিনি বলেছেন, আমি আবু উমামা বাহিলী রাঃ ও অন্যান্য সাহাবীদের পরস্পর [ঈদের নামায থেকে] ফিরে যাবার সময় তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকা বলতে শুনেছি।

আর ইমাম আহমাদ বিন হাম্বল রহঃ বলেছেনঃ এ হাদীসের সনদটি জাইয়্যিদ। [আলজাওহারুন নাকী আলাস সুনানিল বায়হাকী-৩/৩১৯]

شَهْرٌ مُبَارَكٌ، وَظَاهِرُهُ الْإِخْبَارُ أَيْ كَثُرَ خَيْرُهُ الْحِسِّيُّ وَالْمَعْنَوِيُّ، كَمَا هُوَ مُشَاهَدٌ فِيهِ، وَيُحْتَمَلُ أَنْ يَكُونَ دُعَاءً أَيْ جَعَلَهُ اللَّهُ مُبَارَكًا عَلَيْنَا وَعَلَيْكُمْ، وَهُوَ أَصْلٌ فِي التَّهْنِئَةِ الْمُتَعَارَفَةِ فِي أَوَّلِ الشُّهُورِ بِالْمُبَارَكَةِ، (مرقاة المفاتيح، كتاب الصوم، الفصل الثالث، رقم-1962، 4/235

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

হালাল ও হারাম মিশ্রিত সম্পদের মালিকের কাছ থেকে হাদিয়া গ্রহণের বিধান

প্রশ্ন মুফতী সাহেব, আসসালামু আলাইকুম। আমি একজন ইন্টার্নী ডাক্তার, ঢাকা মেডিকেল কলেজে কর্মরত আছি।  আমার কিছু প্রশ্ন ছিল, আশা করি উত্তর প্রদান করে বাধিত করবেন। নামঃ সালেহ মোহাম্মদ শোয়াইব দেশঃ বাংলাদেশ বিষয়ঃ ব্যাঙ্ক লোন নিয়ে বাড়ি …