হোম / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / উটের গোস্ত খেলে অজু ভেঙ্গে যায়?

উটের গোস্ত খেলে অজু ভেঙ্গে যায়?

প্রশ্ন

আস্সালামু আলাইকুম
ভাইয়া, আমি সৌদি আরাব প্রবাসি
জেদ্দা থেকে।

আমরা পরস্পর জানতে পেরেছি যে উটের গোস্ত খেলে ওযু ভেঙ্গে যায়,আসলে এর হুকুম কি বিস্তারিত রেফারেন্স সহ জানালে উপকৃত হইতাম।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

এ মাসআলা নিয়ে মতভেদ আছে। কিছু হাদীসে উটের গোস্ত খেলে অজু করার নির্দেশ এসেছে। আবার কিছু হাদীসে গোস্ত খাবার পর অজু না করার বর্ণনাও এসেছে।

এ বিষয়ে সহীহ মুসলিমের বিখ্যাত ব্যাখ্যাকার ইমাম নববী রহঃ বলেনঃ

فاختلف العلماء في أكل لحوم الجزور وذهب الاكثرون إلى أنه لاينقض الْوُضُوءَ مِمَّنْ ذَهَبَ إِلَيْهِ الْخُلَفَاءُ الْأَرْبَعَةُ الرَّاشِدُونَ أبو بكر وعمر وعثمان وعلي وبن مسعود وابي بن كعب وبن عَبَّاسٍ وَأَبُو الدَّرْدَاءِ وَأَبُو طَلْحَةَ وَعَامِرُ بْنُ رَبِيعَةَ وَأَبُو أُمَامَةَ وَجَمَاهِيرُ التَّابِعِينَ وَمَالِكٌ وَأَبُو حَنِيفَةَ وَالشَّافِعِيُّ وَأَصْحَابُهُمْ وَذَهَبَ إِلَى انْتِقَاضِ الْوُضُوءِ بِهِ أَحْمَدُ بْنُ حَنْبَلٍ وَإِسْحَاقُ بْنُ رَاهَوَيْهِ وَيَحْيَى بْنُ يَحْيَى وَأَبُو بَكْرِ بْنُ الْمُنْذِرِ وبن خُزَيْمَةَ وَاخْتَارَهُ الْحَافِظُ أَبُو بَكْرٍ الْبَيْهَقِيُّ وَحُكِيَ عَنِ أَصْحَابِ الْحَدِيثِ مُطْلَقًا وَحُكِيَ عَنْ جَمَاعَةٍ مِنَ الصَّحَابَةِ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمْ أَجْمَعِينَ

উটের গোস্ত খেলে অজু ভাঙ্গা বিষয়ে উলামাগণের মাঝে মতভেদ রয়েছে।

অধিকাংশ উলামাগণের মতে এতে করে অজু ভঙ্গ হয় না। এ মতই পোষণ করেছেন চার খলীফায়ে রাশেদ। তথা আবু বকর রাঃ, হযরত উমর রাঃ, হযরত উসমান রাঃ, হযরত আলী রাঃ, হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসঊদ রাঃ, হযরত উবাই বিন কা’ব রাঃ, হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ, হযরত আবু তালহা রাঃ, হযরত আমের বিন রাবীয়া রাঃ, হযরত উমামা রাঃ এবং জমহুর তাবেয়ীগণ এবং ইমাম মালেক রহঃ, ইমাম আবু হানীফা রহঃ, ইমাম শাফেয়ী রহঃ,এবং তাদের ছাত্রবৃন্দ।

অজু ভঙ্গ হয়ে যাবার পক্ষে মত ব্যক্ত করেছেন ইমাম আহমাদ বিন হাম্বল রহঃ, হযরত ইসহাক বিন রাহাওয়াই রহঃ, হযরত ইয়াহইয়া বিন ইয়াহইয়া,, আবু বকর বিন মুনজির, ইবনে খুজাইমা,ইমাম বায়হাকী প্রমুখ। এবং মুহাদ্দিসগণ থেকেও আমভাবে বর্ণিত। একদল সাহাবা রাজিআল্লাহু আনহুম আজমাঈন থেকেও তা বর্ণিত। [শরহে সহীহ মুসলিম, ইমাম নববীকৃত-৪/৪৮-৪৯]

যেসব হাদীসে উটের গোস্ত খেলে অজু করার কথা এসেছে। এর জবাব দু’টি। যথা-

احدهما أنه منسوخ

এসব হাদীস ইসলামে প্রথম যুগের। পরবর্তীতে এ বিধান রহিত হয়ে গেছে। [শরহে মুসলিম,ইমাম নববীকৃত-৪/৪৩,ইলাউস সুনান-১/১৭২,]

وَالْجَوَابُ الثَّانِي أَنَّ الْمُرَادَ بِالْوُضُوءِ غَسْلُ الْفَمِ وَالْكَفَّيْنِ

দ্বিতীয় জবাব হল,অজু করার দ্বারা উদ্দেশ্য হল,মুখ ও উভয় হাত ধৌত করা। [শরহে মুসলিম,ইমাম নববীকৃত-৪/৪৩,ইলাউস সুনান-১/১৭২]

উটের বা অন্যান্য হালাল প্রাণীর গোস্ত খাবার পর অজু করার নির্দেশের দ্বারা উদ্দেশ্য কী? তা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আরেকটি হাদীস দ্বারা পরিস্কার হয়ে যায়।

হযরত ইকরাশ রাঃ থেকে একটি লম্বা হাদীস বর্ণিত হয়েছে। যার শেষের দিকে এসেছেঃ

ثُمَّ أُتِينَا بِمَاءٍ فَغَسَلَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَدَيْهِ، وَمَسَحَ بِبَلَلِ كَفَّيْهِ وَجْهَهُ وَذِرَاعَيْهِ وَرَأْسَهُ وَقَالَ: يَا عِكْرَاشُ، هَذَا الوُضُوءُ مِمَّا غَيَّرَتِ النَّارُ. (ترمذى-1848، المعجم الكبير-154، شعب الايمان-5458)

অতঃপর আমাদের পানি দেয়া হল। তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার উভয় হাত ধৌত করলেন। এবং উভয় তালুর ভিজা অংশ দিয়ে চেহারা,বাহু এবং মাথা মাসাহ করলেন। সাথে সাথে বললেনঃ হে ইকরাশ! এটাই হল, আগুণে রান্না করা খাবার ভক্ষণের পরের অজু। [সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১৮৪৮,আলমুজামুল কাবীর লিততাবারানী, হাদীস নং-১৫৪, শুয়াবুল ঈমান লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৫৪৫৮]

উপরোক্ত আলোচনা দ্বারা আশা করি আমাদের কাছে পরিস্কার যে, খোলাফায়ে রাশেদীনসহ অধিকাংশ সাহাবাগণের মত হল,উটের গোস্ত খেলে অজু ভঙ্গ হয় না।

আর যেসব হাদীসে অজু ভঙ্গ হবার কথা এসেছে, এর জবাব দু’টি। এ বিধান রহিত হয়ে গেছে। দ্বিতীয়ত অজু করার অর্থ হল, হাত মুখ ধৌত করা। পবিত্রতার জন্য যে অজু করা হয়, সেই অজু করা উদ্দেশ্য নয়।

আমরা খুলাফায়ে রাশেদীন ও অধিকাংশ সাহাবাগণের মতানুসারেই বলে থাকি যে, উটের গোস্ত ভক্ষণে অজু ভঙ্গ হয় না। তবে খাবার পর হাত মুখ ধৌত করে নিবে। এর নাম পবিত্রতার অজু নয়। বরং পরিচ্ছন্নতা।

এবার কয়েকটি হাদীস ও আছারে সাহাবা দেখে নেইঃ

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ: «أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَكَلَ عَرْقًا، أَوْ لَحْمًا، ثُمَّ صَلَّى وَلَمْ يَتَوَضَّأْ، وَلَمْ يَمَسَّ مَاءً» (مسلم، رقم الحديث-354)

হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একদা হাড়ের উপরের গোস্ত, বা শুধু গোস্ত আহার করলেন। তারপর অজু ও পানি স্পর্শ করা ছাড়াই নামায আদায় করলেন। [সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৩৫৪]

جَابِرَ بْنَ عَبْدِ اللَّهِ، يَقُولُ: «قَرَّبْتُ لِلنَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ خُبْزًا وَلَحْمًا فَأَكَلَ، ثُمَّ دَعَا بِوَضُوءٍ فَتَوَضَّأَ بِهِ، ثُمَّ صَلَّى الظُّهْرَ، ثُمَّ دَعَا بِفَضْلِ طَعَامِهِ فَأَكَلَ، ثُمَّ قَامَ إِلَى الصَّلَاةِ وَلَمْ يَتَوَضَّأْ»

হযরত জাবের বিন আব্দুল্লাহ রাঃ বলেছেনঃ আমি একদা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে রুটি ও গোস্ত উপস্থিত করলাম। তখন তিনি খেলেন। তারপর অজুর জন্য বললেন। অজু করে যোহর নামায পড়লেন। তারপর অবশিষ্ট খানা খেলেন। তারপর আবার নামাযে দাড়ালেন। কিন্তু অজু করেননি। [সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-১৯১]

1598 – عَبْدُ الرَّزَّاقِ، عَنِ الثَّوْرِيِّ، عَنْ جَابِرٍ، عَنْ أَبِي سَبْرَةَ: أَنَّ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ، «أَكَلَ مِنْ لُحُومِ الْإِبِلِ ثُمَّ صَلَّى، وَلمْ يَتَوَضَّأْ» (عبد الرزاق)

গযরদ আবু সাবরাহ রহঃ থেকে বর্ণিত। হযরত উমর রাঃ উটের গোস্ত খেয়ে নামায পড়লেন। কিন্তু অজু করেননি। [মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-১৫৯৮, মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫১৭]

515 – حَدَّثَنَا عَائِذُ بْنُ حَبِيبٍ، عَنْ يَحْيَى بْنِ قَيْسٍ، قَالَ: «رَأَيْتُ ابْنَ عُمَرَ، أَكَلَ لَحْمَ جَزُورٍ، وَشَرِبَ لَبَنَ الْإِبِلِ، وَصَلَّى وَلَمْ يَتَوَضَّأْ»

হযরত ইয়াহইয়া বিন কায়েস রহঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি হযরত ইবনে উমর রাঃ কে দেখেছি, তিনি উটের গোস্ত খেলেন, এবং উটের দুধ খেলেন তারপর অজু করা ছাড়াই নামায পড়েছেন। [মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫১৫]

519 – حَدَّثَنَا وَكِيعٌ، عَنْ رِفَاعَةَ بْنِ سَلْمٍ، قَالَ: «رَأَيْتُ سُوَيْدَ بْنَ غَفَلَةَ، أَكَلَ لَحْمَ جَزُورٍ، ثُمَّ صَلَّى وَلَمْ يَتَوَضَّأْ»

হযরত রিফাআ বিন সালাম রহঃ বলেন, আমি হযরত সুআইদ বিন গাফালা রাঃ কে দেখেছি, তিনি উটের গোস্ত খেয়ে নতুন করে অজু না করেই নামায পড়েছেন। [মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫১৯]

521 – حَدَّثَنَا هُشَيْمٌ، قَالَ: أَخْبَرَنَا عَلِيُّ بْنُ زَيْدٍ، قَالَ: حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ الْمُنْكَدِرِ، عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ، قَالَ: «أَكَلْتُ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، وَمَعَ أَبِي بَكْرٍ، وَعُمَرَ، وَعُثْمَانَ خُبْزًا وَلَحْمَا، فَصَلَّوْا وَلَمْ يَتَوَضَّأُوا»

হযরত জাবের বিন আব্দুল্লাহ রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, এবং আবু বকর রাঃ, হযরত উমর রাঃ, হযরত উসমান রাঃ এর সাথে রুটি ও গোস্ত খেয়েছি। তারা খাবার পরে নতুন অজু না করেই নামায পড়েছেন। [মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৫২১]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

মৃত স্ত্রীকে স্বামী বা মৃত স্বামীকে স্ত্রী গোসল দিতে পারবে কি?

প্রশ্ন স্বামী মারা গেলে স্ত্রী তাকে গোসল দিতে পারবে? স্ত্রী মারা গেলে স্ত্রী তার স্বামীকে …