হোম / আদব ও আখলাক / রাগ কমানোর সুন্নতী পদ্ধতি কী?

রাগ কমানোর সুন্নতী পদ্ধতি কী?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম।

শ্রদ্ধেয় মুফতী সাহেবের কাছে আমার বিনীত প্রশ্ন হল, হযরত! আমি অত্যন্ত রাগী মানুষ। আমার মনের উল্টো কোন কিছু দেখলেই আমার মেজাজ খারাপ হয়ে যায়। এ কারণে অনেক সমস্যার সম্মুখিন হয়েছি। অনেকের সাথে সম্পর্ক নষ্ট হয়েছে।

রাগ চলে গেলে নিজের ভুল বুঝতে পারি। কিন্তু রাগ উঠলে কিছু মনে থাকে না। যা’তা বলে ফেলি। অনেক খারাপ আচরণ প্রকাশ পায়।

কোনভাবেই নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারি না। এক্ষেত্রে কী আমল করলে আমার এ বদভ্যাস দূর হবে? দয়া করে জানালে কৃতজ্ঞ হবো।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

অহেতুক রাগ আসে শয়তানের পক্ষ থেকে। রাগ হল আগুণের প্রতিচ্ছবি। আগুণ যেমন বস্তুসমূহ পুড়িয়ে ফেলে তেমনি রাগ মানুষের মনুষত্ব ধ্বংস করে দেয়।

রাগের কারণেই পরিবার ও সমাজে অধিকাংশ সময় অশান্তির আগুন জ্বলে উঠে। সংসার ভেঙ্গে যায়। পরিবার পরিবারে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। পরিবার, সমাজ ধ্বংস হয়।

এ কারণে অহেতুক রাগ পরিহার করা আবশ্যক।

এক্ষেত্রে হাদীসে নির্দেশনা এসেছে। যদি রাগ উঠে, তাহলে দাঁড়ানো থাকলে বসে পড়বে। ইনশাআল্লাহ রাগের মাত্রা কমে আসবে।

যদি বসে পড়ার পরও রাগ না যায়, তাহলে শুয়ে পড়বে। এবার আর রাগ থাকার কথা নয়।

যদি শুয়ে পড়ার পরও রাগ না কমে, তাহলে অজু বা গোসল করে ফেলবে।

ইনশাআল্লাহ এতে রাগ থাকবে না।

হাদীসে বর্ণিত উপরোক্ত পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করুন। সেই সাথে “অহেতুক রাগ করা শয়তানের কাজ” এ বিষয়টি মাথায় রাখুন। ইনশাআল্লাহ রাগের বদভ্যাস ধীরে ধীরে কমে আসবে।

হযরত আবু যর গিফারী রাঃ থেকে বর্ণিত।

فَقَالَ: إِنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ لَنَا: “إِذَا غَضِبَ أَحَدُكُمْ وَهُوَ قَائِمٌ فَلْيَجْلِسْ، فَإِنْ ذَهَبَ عَنْهُ الْغَضَبُ وَإِلَّا فَلْيَضْطَجِعْ “

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের ইরশাদ করেছেন, যদি তোমাদের কেউ দাঁড়ানো অবস্থায় রাগাম্বিত হও, তাহলে বসে পড়ো। যদি এতে রাগ চলে যায়, তাহলেতো ভাল, নতুবা শুয়ে পড়। [মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২১৩৪৮, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৪৭৮২]

حَدَّثَنَا أَبُو وَائِلٍ الْقَاصُّ، قَالَ: دَخَلْنَا عَلَى عُرْوَةَ بْنِ مُحَمَّدٍ السَّعْدِيِّ، فَكَلَّمَهُ رَجُلٌ فَأَغْضَبَهُ، فَقَامَ فَتَوَضَّأَ ثُمَّ رَجَعَ وَقَدْ تَوَضَّأَ، فَقَالَ: حَدَّثَنِي أَبِي، عَنْ جَدِّي عَطِيَّةَ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «إِنَّ الْغَضَبَ مِنَ الشَّيْطَانِ، وَإِنَّ الشَّيْطَانَ خُلِقَ مِنَ النَّارِ، وَإِنَّمَا تُطْفَأُ النَّارُ بِالْمَاءِ، فَإِذَا غَضِبَ أَحَدُكُمْ فَلْيَتَوَضَّأْ»

আবূ ওয়াইল আল-কাস (রহঃ) সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা আমরা উরওয়াহ ইবনু মুহাম্মাদ আস সা‘দির নিটক গেলাম। তখন এক ব্যক্তি তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি করে তাকে রাগিয়ে দিলো। অতএব তিনি দাঁড়ালেন এবং উযু করলেন। অতঃপর বললেন, আমার পিতা আমার দাদা আতিয়্যাহ (রহঃ) থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ রাগ হচ্ছে শয়তানী প্রভাবের ফল। শয়তানকে আগুন থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে। আর আগুন পানি দিয়ে নিভানো যায়। অতএব তোমাদের কারো রাগ হলে সে যেন উযু করে নেয়। [সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৪৭৮৪]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

আপনি কি দ্বীনের খাদিম হতে চান?

মাওলানা আবু আহমাদ একজন মুসলিমের জীবনে সবচেয়ে বড় অর্জন হল, ইসলামের খেদমত করতে পারা। আল্লাহ্র দেওয়া …

একটি মন্তব্য

  1. নওশাদ

    সাইডটি খুব ভালো লাগলো৷ তবে খ্রিষ্টান মিশনারীর অপপ্রচার নিয়ে লিখলে ভালো হয়৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *