হোম / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / শরীর থেকে রক্ত বের হলে কী অযু ভঙ্গ হয় না?
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

শরীর থেকে রক্ত বের হলে কী অযু ভঙ্গ হয় না?

প্রশ্ন

শরীর থেকে রক্ত বের হলে কি অযু ভঙ্গ হয় না? আমাদের এলাকার কিছু আহলে হাদীস ভাইয়েরা বলছেন যে, শরীর থেকে রক্ত বের হলে নাকি অযু ভঙ্গ হয় না। এ বিষয়ে হাদীসের আলোকে জবাব দিলে ভাল হতো।

জাযাকাল্লাহ।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

রক্ত বের হলে অযু ভঙ্গ হয়ে যায়। একাধিক সহীহ ও হাসান পর্যায়ের হাদীস দ্বারা প্রমাণিত।

مَالِكٌ عَنْ نَافِعٍ أَنَّ عَبْدَ اللهِ بْنَ عُمَرَ كَانَ إِذَا رَعَفَ، انْصَرَفَ فَتَوَضَّأَ، ثُمَّ رَجَعَ فَبَنَى وَلَمْ يَتَكَلَّمْ

হযরত নাফে রহঃ থেকে বর্ণিত। হযরত আব্দুল্লাহ বিন উমর রাঃ এর যখন নাক দিয়ে রক্ত বের হতো, তখন তিনি নামায থেকে ফিরে গিয়ে অযু করতেন, তারপর ফিরে এসে বাকি নামায আদায় করতেন, এর মাঝে তিনি কথা বলতেন না। [মুয়াত্তা মালেক-১১০, খন্ড ১, পৃষ্ঠা ১৩]

عَنْ مَعْمَرٍ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، عَنْ سَالِمٍ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ قَالَ: «إِذَا رَعَفَ الرَّجُلُ فِي الصَّلَاةِ، أَوْ ذَرَعَهُ الْقَيْءُ، أَوْ وَجَدَ مَذِيًّا فَإِنَّهُ يَنْصَرِفُ وَيَتَوَضَّأُ، ثُمَّ يَرْجِعُ فَيُتِمُّ مَا بَقِيَ عَلَى مَا مَضَى، مَا لَمْ يَتَكَلَّمْ

হযরত ইবনে উমর রাঃ থেকে বর্ণিত। নামাযের মাঝে কারও নাক দিয়ে রক্ত বের হলে বা বমি হলে অথবা মযী দেখলে সে ব্যক্তি নামায ছেড়ে দিয়ে অজু করবে, তারপর ফিরে এসে ছুটে যাওয়া নামায পূর্ণ করবে যতক্ষণ না সে কথা বলে। [মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-৩৬০৯, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ৩৩]

عَنْ عَلِيٍّ قَالَ: «إِذَا وَجَدَ أَحَدٌ رِزًّا أَوْ رُعَافًا أَوْ قَيْئًا فَلْيَنْصَرِفْ وَلْيَضَعْ يَدَهُ عَلَى أَنْفِهِ، فَلْيَتَوَضَّأْ، فَإِنْ تَكَلَّمَ اسْتَقْبَلَ وَإِلَّا اعْتَدَّ بِمَا مَضَى

হযরত আলী রাঃ বলেন, তোমাদের কেউ যখন তার পেটে [বায়ুজনিত] পীড়া অথবা নাক দিয়ে রক্ত বের হওয়া বা বমি লক্ষ্য করে, সে যেন নাকে হাত দিয়ে বের হয়ে গিয়ে অজু করে নেয়। যদি কথা বলে থাকে তাহলে নতুন করে নামায পড়বে। আর কথা না বলে থাকলে আগের আদায়কৃত অংশকে গণ্য করবে। [মুসন্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-৩৬০৭]

عَنِ الْحَسَنِ، أَنَّهُ كَانَ لَا يَرَى الْوُضُوءَ مِنَ الدَّمِ إِلَّا مَا كَانَ سَائِلًا

হযরত হাসান বসরী রহঃ থেকে বর্ণিত। তিনি এমন রক্তের কারণে অজু করা জরুরী মনে করতেন যে, যা স্বীয় স্থান থেকে বেরিয়ে প্রবাহিত হয়ে গেছে। [মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা-১/১৩৭, হাদীস নং-১৪৫৯]

عَنْ إِبْرَاهِيمَ فِي الرَّجُلِ يَبْزُقُ فَيَكُونُ فِي بُزَاقِهِ الدَّمُ، قَالَ: «إِذَا غَلَبَتِ الْحُمْرَةُ الْبَيَاضَ تَوَضَّأَ، وَإِذَا غَلَبَ الْبَيَاضُ الْحُمْرَةَ لَمْ يَتَوَضَّأْ

হযরত ইবরাহীম নাখয়ী রহঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, কোন ব্যক্তি থুথু ফেললো, তখন সে তার থুথুতে রক্ত দেখলো, তাহলে যদি লাল বর্ণ শুভ্রতার উপর প্রাধান্য দেখে, তাহলে অজু করবে। আর যদি শুভ্রতা লাল বর্ণের উপর প্রাধান্য দেখতে পায়, তাহলে অজু করতে হবে না। [মুসন্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-১৩৩২]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

কে ছিলেন মারিয়া কিবতিয়া রাঃ?

প্রশ্ন প্রশ্নকর্তা-মঞ্জুরুল হাসান, ইন্ডিয়া। আসসালামু আলাইকুম। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, মারিয়া কিবতিয়া কে ছিলেন? নবী পাকের …