হোম / আধুনিক মাসায়েল / ইন্টারনেটঃ আশীর্বাদ নাকি অভিশাপ? গোনাহ থেকে পরিত্রাণের উপায় কী?

ইন্টারনেটঃ আশীর্বাদ নাকি অভিশাপ? গোনাহ থেকে পরিত্রাণের উপায় কী?

প্রশ্ন

Assalamu-Alaikum.

প্রথমেই মাফ চাই । আমি একজন সাধারণ মুসলিম । আহলে হাদিসদের মিশন সফল হয়েছে কিনা জানি না কিন্তু ইহুদি খ্রিষ্টানদের মিশন সফল হয়েছে । তারা মুসলিমদের ঈমান আমল নষ্ট করার জন্য ইন্টারনেটে ব্লুফিল্ম পর্ণছবি ছাড়ে । কিন্তু তারা দেখে হক আলেমরা ইন্টারনেট টিভি ইত্যাদি ব্যবহারের বিপক্ষে । তাই তারা বাতিল শায়েখদের দিয়ে বিভিন্ন বই ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে হক আলেমদের উপর মিথ্যাচার এবং সহীহ হাদিসের নামে জালিয়াতি ও ধোকাবাজী শুরু করে । একারনে হক আলেমরা তাদের মিথ্যাচার ও জালিয়াতি প্রকাশের জন্য বাধ্য হয়ে ইন্টারনেটে বক্তব্য পেশ করা শুরু করে । ফলে সকলেই ব্যাপকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার শুরু করেছে তাই সকলের ঘরে এবং পকেটে পকেটে অশ্লীলতা ঢুকে পড়ছে । যারা টিভি ইন্টারনেট ব্যবহার করতো না তারাও ব্যবহার শুরু করছে । ইন্টারনেটে ফেসবুক ইউটিউবে ঢুকলেই প্রথমে উলঙ্গ নারীর ছবি চোখে পড়ে । এসব থেকে কিভাবে মুসলিমরা নিজেকে বাঁচাবে ? তথাকথিত আহলে হাদিসদের এ ব্যাপারে বলে কোন লাভ নাই কারন তারা সবসময় বাস্তবতা ও আসল ব্যাপারটাকে এড়িয়ে যায় । তাই ওলামায়ে হকদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি আপনারা ইন্টারনেটের এসব অশ্লীলতার ব্যাপারে মানুষকে বারংবার সাবধান করবেন ।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

হ্যাঁ, ভাই অতীব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ের দিকে সতর্ক করেছেন। জাযাকাল্লাহ।

আমরাও খুবই আশংকার সাথে লক্ষ্য করছি যে, আমাদের চোখের হিফাযত বলতে কিছুই নেই। ভয়াবহ আকারে চোখের গোনাহ বেড়ে চলছে। সিনেমা, নাটক দেখা এখন স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। আশ্চর্যের বিষয় হল, ধর্মপ্রাণ অনেক ভাইয়ের বাড়িতে টিভি নেই। কিন্তু নেট লাইন থাকায় টিভির চেয়ে জঘন্য গোনাহ নেটের মাধ্যমেই করা হচ্ছে।

কারো কারো মোবাইলের মেমোরীর ফোল্ডার খুলতেই যা দেখা যায়, তাতে আঁৎকে উঠতে হয়। চেহারা দেখে তার মোবাইলে এসব থাকতে পারে, ভাবাই যায় না। ইন্নালিল্লাহ! আমরা কোথায় যাচ্ছি?

এই ইন্টারনেট। আমাদের জন্য আশীর্বাদ নাকি অভিশাপ?

আমাদের তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টারের ফিক্কহ ও ফাতওয়া বিষয়ক প্রশ্নোত্তর বিভাগে ইদানিং প্রচুর পরিমাণ “হস্তমৈথুন” এবং ওরাল সেক্স বিষয়ক প্রশ্ন আসাটাও আমাদের ভাবিয়ে তুলছে। এসব কিসের প্রতিক্রিয়া? কি কারণে আমাদের এ সরল ধর্মপ্রাণ মানুষের দেশে এ ঘৃণ্যতার সয়লাব হচ্ছে? কারা আমাদের সুকোমলবৃত্তি দূরিভূত করে নোংরামী, অশ্লীলতা আমাদের মন-মগজে ঢুকিয়ে দিচ্ছে? কিসের প্রভাবে এমন হচ্ছে?

হ্যাঁ, হ্যাঁ, এসবের জন্য ইন্টারনেটে অবাধ যৌনতা ও নোংরামীর সয়লাব বহুলাংশে দায়ী।

আমরা সরকারকে করজোড় অনুরোধ করি!

আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের চরিত্র রক্ষা করতে অচিরেই পর্ণ সাইটগুলো বন্ধ করে দিন।

আমরা যা করতে পারি!

অভিভাবকদের বাসা বাড়িতে প্রয়োজন ছাড়া নেট লাইন রাখা উচিত নয়। উচিত নয় ওয়াইফাই চালু রাখা। সন্তানদের মোবাইল, কম্পিউটার ব্যবহারকে সীমিত রাখতে হবে। মাঝে মাঝে তা চেক করতে হবে।

পড়াশোনার সময় ভিডিও দেখা যায়, নেট চালানো যায়, এমন মোবাইল ব্যবহার করতে কড়াভাবে নিষেধ করা উচিত।

নিজেরা গোনাহ থেকে বাঁচতে!

আবশ্যকীয় প্রয়োজন ছাড়া নেট কানেকশন না নেই।

ভিডিও সাপোর্ট করে না এমন মোবাইল করি।

নিয়মিত তাহাজ্জুদ পড়ার অভ্যাস করি। শেষ রাতে কিছুক্ষণ জিকির করে দুআ করার অভ্যাস করি।

ইনশাআল্লাহ যেদিন তাহাজ্জুদ ও জিকির-দুআ হবে, সেদিন এমন পাপ করতে বিবেকই বাঁধা দিবে ইনশাআল্লাহ।

কোন আল্লাহ ওয়ালার সাথে ইসলাহী সম্পর্ক গড়ে তুলি। যার কাছে নিজের হালাতের কথা বলে আত্মশুদ্ধির মেহনত করা যায়।

মোবাইল, কম্পিউটার থেকে নেটে ঢুকার পূর্বে আউজুবিল্লাহ, বিসমিল্লাহ পড়ে নেই।

নিজের সামনে সর্বদা কুরআন শরীফ রাখার চেষ্টা করি। ইনশাআল্লাহ কুরআনের উপস্থিতির ভয় হয়তো এ থেকে নিজেকে বাঁচাতে সহযোগিতা করতে পারে।

জামাতের সাথে নামায পড়ার চেষ্টা করি। দাওয়াত ও তাবলীগের মেহনত তথা নিয়মিত গাস্ত, তালীম, মাশোয়ারা ইত্যাদি, কিংবা চরমোনাই তরীকার জিকির, মাশোয়ারা, শবগুজারী, ইত্যাদির সাথে জড়িত থাকি। এছাড়া হক্কানী যত জামাতের এলাকাভিত্তিক কাজ চালু আছে, এর সাথে জড়িয়ে থাকি।

ইনশাআল্লাহ দ্বীনদারদের সোহবাত এসব গোনাহ থেকে মুক্ত থাকতে সহযোগী হবে।

সর্বদাই আল্লাহ আমাকে দেখছেন, সব কিছুর জবাব মহান মালিকের দরবারে দাঁড়িয়ে দিতে হবে এ বিশ্বাস পাক্কা রাখুন।

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

হালাল ও হারাম মিশ্রিত সম্পদের মালিকের কাছ থেকে হাদিয়া গ্রহণের বিধান

প্রশ্ন মুফতী সাহেব, আসসালামু আলাইকুম। আমি একজন ইন্টার্নী ডাক্তার, ঢাকা মেডিকেল কলেজে কর্মরত আছি।  আমার কিছু প্রশ্ন ছিল, আশা করি উত্তর প্রদান করে বাধিত করবেন। নামঃ সালেহ মোহাম্মদ শোয়াইব দেশঃ বাংলাদেশ বিষয়ঃ ব্যাঙ্ক লোন নিয়ে বাড়ি …