হোম / কাফন-দাফন-জানাযা / লাশ দাফনের পর দুআ ও কবর যিয়ারত পদ্ধতি প্রসঙ্গে
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

লাশ দাফনের পর দুআ ও কবর যিয়ারত পদ্ধতি প্রসঙ্গে

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম   নাম: মুস্তফা ঠিকানা: জয়পুরহাট সদর, জয়পুরহাট
প্রশ্ন: মৃত ব্যাক্তিকে কবরস্থ করার পর সুন্নাত আমল কি? কবরস্থ করার পর
কবর জিয়ারতের যে আমল করা হয়, তারপর সম্মিলিত মুনাজাত করা হয় এটা কি
বিদাত?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

মাথার পাশে দাড়িয়ে সূরা ফাতিহা পাঠ করবে, আর পায়ের পাশে দাঁড়িয়ে সূরা বাকারার শেষাংশ তিলাওয়াত করবে। অথবা মাথার পাশে দাঁড়িয়ে সূরা বাকারার শুরু অংশ এবং পায়ের পাশে দাড়িয়ে সূরা বাকারার শেষাংশ তিলাওয়াত করবে।

এবং তার জন্য ইস্তিগফার করবে ও দুআ করবে। এসব আমল হাদীস দ্বারা প্রমাণিত।

কবর যিয়ারতের উদ্দেশ্যে আসলে প্রথমে কবরকে দেখে পড়বে, আসসালামু আলাইকা ইয়া আহলাল কুবুরে। বা পড়বে আসসালামু আলা আহলিদ দিয়ারি মিনাল মু’মিনীনা ওয়ালমুসলিমীনা, ওয়ারহামুল্লাহুল মুস্তাকদিমীনা মিন্না ওয়াল মুস্তা’খিরীনা, ওয়াইন্না ইনশাআল্লাহু কিবুম লাহিকূন। তারপর কুরআন তিলাওয়াত. দরূদ,ইস্তিগফার ইত্যাদি যতটুকু সম্ভব পড়ে কিবলামুখী হয়ে মৃতের জন্য দুআ করবে।


عَبْدُ الرَّحْمَنِ بْنُ الْعَلَاءِ بْنِ اللَّجْلَاجِ، عَنْ أَبِيهِ، قَالَ: قَالَ لِي أَبِي: ” يَا بُنَيَّ إِذَا أَنَا مُتُّ فَأَلْحِدْنِي، فَإِذَا وَضَعْتَنِي فِي لَحْدِي فَقُلْ: بِسْمِ اللهِ وَعَلَى مِلَّةِ رَسُولِ اللهِ، ثُمَّ سِنَّ عَلَيَّ الثَّرَى سِنًّا، ثُمَّ اقْرَأْ عِنْدَ رَأْسِي بِفَاتِحَةِ الْبَقَرَةِ وَخَاتِمَتِهَا، فَإِنِّي سَمِعْتُ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ ذَلِكَ

হযরত আব্দুর রহমান বিন আলা বিন লাজলাজ, তার পিতা থেকে বর্ণনা করেন যে, আমার পিতা আমাকে বলেছেন, হে বৎস! আমি যখন মারা যাবো, তখন আমার জন্য “লাহাদ” কবর খুড়বে। তারপর আমাকে যখন কবরে রাখবে তখন পড়বে “বিসমিল্লাহি ওয়াআলা মিল্লাতি রাসূলিল্লাহ” তারপর আমার উপর মাটি ঢালবে। তারপর আমার মাথার পাশে সূরা বাকারার শুরু এবং শেষাংশ পড়বে। কেননা, আমি রাসূল সাঃ থেকে এমনটি বলতে শুনেছি। [আলমুজামুল কাবীর লিততাবরানী, হাদীস নং-৪৫১, সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৭০৬৮]

আল্লামা হায়ছামী রহঃ বলেনঃ

رَوَاهُ الطَّبَرَانِيُّ فِي الْكَبِيرِ، وَرِجَالُهُ مُوَثَّقُونَ.

এ হাদীস ইমাম তাবারানী তার কাবীরে নকল করেছেন, এবং তার প্রতিটি রাবী সিকা। [মাযমাউজ যাওয়ায়েদ, হাদীস নং-৪২৪৩]

ابْنَ عُمَرَ، يَقُولُ: سَمِعْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ: «إِذَا مَاتَ أَحَدُكُمْ فَلَا تَحْبِسُوهُ، وَأَسْرِعُوا بِهِ إِلَى قَبْرِهِ، وَلْيُقْرَأْ عِنْدَ رَأْسِهِ بِفَاتِحَةِ الْكِتَابِ، وَعِنْدَ رِجْلَيْهِ بِخَاتِمَةِ الْبَقَرَةِ فِي قَبْرِهِ

হযরত ইবনে উমর রাঃ বলেন, রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, যখন কোন ব্যক্তি মারা যায়, তখন তাকে আটকে রেখো না, বরং দ্রুত তাকে কবরস্ত কর। আর তার কবরের মাথার পাশে দাঁড়িয়ে সূরা ফাতিহা এবং পায়ের পাশে দাঁড়িয়ে সূরা বাকারার শেষ অংশ তিলাওয়াত কর। [আলমুজামুল কাবীর লিততাবরানী, হাদীস নং-১৩৬১৩, শুয়াবুল ঈমান লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৮৮৫৪]

عَنْ عُثْمَانَ بْنِ عَفَّانَ، قَالَ: كَانَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، إِذَا فَرَغَ مِنْ دَفْنِ الْمَيِّتِ وَقَفَ عَلَيْهِ، فَقَالَ: «اسْتَغْفِرُوا لِأَخِيكُمْ، وَسَلُوا لَهُ بِالتَّثْبِيتِ، فَإِنَّهُ الْآنَ يُسْأَلُ»

হযরত উসমান বিন আফফান রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাঃ যখন মৃতকে দাফন করা থেকে ফারিগ হতেন, তখন সেখানে দাঁড়িয়ে বলতেন, তোমাদের ভাইয়ের জন্য দুআ কর। এবং তার জন্য দৃঢ়তার দুআ কর। কেননা, এখন তার সুওয়াল জওয়াব হবে। [সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৩২২১]

হাদীসটি সহীহ।

عَنْ عَطِيَّةَ الرَّعَّاءِ، عَنِ الْحَكَمِ بْنِ الْحَارِثِ السُّلَمِيِّ أَنَّهُ غَزَا مَعَ رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ثَلَاثَ غَزَوَاتٍ، قَالَ: قَالَ لَنَا: «إِذَا دَفَنْتُمُونِي ورَشَشْتُمْ عَلَى قَبْرِي الْمَاءَ، فَقُومُوا عَلَى قَبْرِي وَاسْتَقْبِلُوا الْقِبْلَةَ وَادْعُوا لِي

হযরত হাকাম বিন হারেছ সুলামী রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি রাসূল সাঃ এর সাথে তিনটি গাযওয়ায় শরীক ছিলেন। তিনি আমাদের বলেছেন, যখন তোমরা আমাকে দাফন করবে, এবং আমার কবরে পানি ছিটিয়ে দিবে, তখন আমার কবর পাশে দাঁড়াবে। এবং কিবলামুখী হয়ে আমার জন্য দুআ করবে। [আলমুজামুল কাবীর লিততাবরানী, হাদীস নং-৩১৭১]

এক দীর্ঘ হাদীসের শেষাংশে এসেছে। রাসূল সাঃ বলেন,

فَقَالَ: إِنَّ رَبَّكَ يَأْمُرُكَ أَنْ تَأْتِيَ أَهْلَ الْبَقِيعِ فَتَسْتَغْفِرَ لَهُمْ “، قَالَتْ: قُلْتُ: كَيْفَ أَقُولُ لَهُمْ يَا رَسُولَ اللهِ؟ قَالَ ” قُولِي: السَّلَامُ عَلَى أَهْلِ الدِّيَارِ مِنَ الْمُؤْمِنِينَ وَالْمُسْلِمِينَ، وَيَرْحَمُ اللهُ الْمُسْتَقْدِمِينَ مِنَّا وَالْمُسْتَأْخِرِينَ، وَإِنَّا إِنْ شَاءَ اللهُ بِكُمْ لَلَاحِقُونَ

আমাকে জিবরাইল বললেন, আপনার রব আপনাকে আদেশ করেছেন, জান্নাতুল বাকীতে গিয়ে সেখানকার কবরবাসীর জন্য ইস্তিগফার করতে। আয়শা রাঃ বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমরা তাদের জন্য কিভাবে বলবো? রাসূল সাঃ বললেন, বলঃ আসসালামু আলা আহলিদ দিয়ারি মিনাল মু’মিনীনা ওয়ালমুসলিমীনা, ওয়ারহামুল্লাহুল মুস্তাকদিমীনা মিন্না ওয়ালমুস্তা’খিরীনা, ওয়াইন্না ইনশাআল্লাহু বিকুম লাহিকূন। [সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৯৭৪]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা-ইমাম আবূ হানীফা ইসলামী রিসার্চ সেন্টার পিরোজপুর।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

ডেবিট কার্ড ব্যবহারের হুকুম কী?

প্রশ্ন ডেবিট কার্ড ব্যবহারের হুকুম কী? উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم একাউন্ট থাকা ব্যাংকে জমা …