হোম / খেলাধুলা/বিনোদন / শরীয়তের আলোকে খেলাধূলা।

শরীয়তের আলোকে খেলাধূলা।

আশা করি ঈমানদার মুসলিম ভাইগন এই পোস্টটি পড়বেন এবং ঈমানী দায়িত্বে পোস্টটি শেয়ার করবেন বা কপি করবেন। যাতে খেলাধূলা সম্পর্কে যুবক ভাইগন সম্যক ধারনা লাভ করতে পারেন। আল্লাহ আমাদের হক প্রচার এবং বাতিল মিটানোর জন্য তৌফিক দান করুন।

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য। সালাত ও সালাম পেশ করছি প্রিয় নবী রহমাতুল লিল আলামীন হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা (সা) এর উপর।

বিষয় : শরীয়তের আলোকে খেলাধূলা।
শরীয়তের আলোকে খেলাধূলাকে দুই ভাগে ভাগ করা যেতে পারে।

প্রথমত : এমন খেলা যা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, যা দ্বারা জিহাদে সাহায্য হয়, যেমন সুইমিং, শুটিং, অশ্বারোহণ, যা শররীক বিকাশ সাধনে ভাল ভূমিকা পালন করে। অথবা এমন খেলা যা জ্ঞানগত বিকাশ সাধন করে যেমন কুইজ প্রতিযোগীতা । এই জাতীয় খেলা জায়েজ। এই জাতীয় খেলায় নিয়তের উপর সওয়াব পাওয়া যায়। অর্থাৎ নিয়ত যত ভাল হবে সওয়াবও তত বেশী হবে। রাসূল (সা) ইরশাদ করেন : ” হে বানি আদনান, তীর নিক্ষেপ কর, তোমার বাবা একজন তীরন্দাজ ছিলেন।” বর্তমান যুগের যে কোন নিক্ষেপযোগ্য অস্ত্রবিদ্যার খেলা এর অন্তভূর্ক্ত হবে। যেমন শুটিং।

দ্বিতীয়ত এমন খেলা যা জিহাদে কোন সহায়ক ভূমিকা পালন করে না। এই জাতীয় খেলাকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যেতে পারে।

ক. এমন খেলা যা নস দ্বারা সরাসরি নিষিদ্ধ। যেমন ডাইস তৈরি করে খেলা দাবা, পাশা ইত্যাদী। তাই এসব খেলা মুসলমানদের জন্য নিষিদ্ধ।

খ. এমন খেলা যা নস দ্বারা সরাসরি নিষিদ্ধ নয়। এটিও আবার দুই প্রকার।

প্রথম প্রকার : যেই খেলার সাথে হারাম কিছু মিশ্রিত হয়, অথবা যার ফলাফল হারাম। যেমন কোন খেলায় পর্দার লংঘন হওয়া , গান বাজনা অন্তভুক্ত হওয়া, জুয়া অন্তভুক্ত হওয়া ইত্যাদী। অথবা খেলাটি হারামের মাধ্যম হওয়া। অর্থাৎ ঐ খেলাকে কেন্দ্র করে হারামের প্রচার প্রসার ঘটা। এই সব ক্ষেত্রে ঐ খেলায় অংশগ্রহন সর্ম্পূন নাজায়েজ।

দ্বিতীয় প্রকার : শর্ত সাপেক্ষে হালাল। শর্ত লংঘিত হলে হারাম। এই শ্রেনীর খেলা গুলোর মধ্যে আছে ফুটবল, ক্রিকেট, টেনিস, ভলিবল, ইত্যাদী। শর্তগুলো হল :

১. আল্লাহর স্মরন থেকে গাফেল করতে পারবে না। যেমন খেলায় নির্ধারিত সময়ের কারনে সালাতে বিঘ্ন ঘটা। খেলোয়াড় বা দর্শক উভয়ই।

২. খেলা জুয়ামুক্ত হতে হবে।

৩.- এমন কোন কিছুকে সম্মান করতে বাধ্য করা যার সম্মান ইসলাম করে না। যেমন জাতীয় সংগীতের সময় দাড়িয়ে তা সম্মান করার রেওয়াজ। কারন দন্ডায়মান হয়ে শ্রদ্ধা প্রকাশ কেবল আল্লাহ তা’আলার জন্য।

৪. পর্দা লংঘন হতে পারবে না, খেলোয়াড়ারদের বা দর্শক উপস্থিতি যেখানে পর্দার লংঘন নিশ্চিত করে।

৫. এই জাতীয় খেলা খেলোয়াড়ের সম্মানের বিষয় হতে পারবে না।

৬. খেলোয়াড়ের জীবিকার উপায় হতে পারবে না। অথাৎ খেলাকে পেশা হিসাবে নেওয়া যাবে না, বরং নিছক খেলা হিসাবেই রাখতে হবে।

পবিত্র কুরআনে আল্লাহ ইরশাদ করেন : “তারা স্বীয় ধর্মকে তামাশা ও খেলা বানিয়ে নিয়েছিল এবং পার্থিব জীবন তাদেরকে ধোকায় ফেলে রেখেছিল। এতএব , আমি আজ তাদেরকে ভুলে যাব, যেমন তারা এই দিনের সাক্ষাৎকে ভুলে গিয়েছিল এবং যেমন তারা আয়াতসমূহকে অবিশ্বাস করত।

বস্তুত শর্তের কোন সীমাবদ্ধতা নেই। প্রকৃত বিষয় হল খেলা এমন কোন বিষয় নয় যার কারনে শরীয়তে কোন বিধান লংঘনকে বরদাশত করা যেতে পারে, চাই তা খেলোয়াড়দের মধ্যে হোক, আর আয়োজন কিংবা দর্শকদের মধ্যে হোক। অর্থাৎ ঐ খেলা যদি নিশ্চিত ভাবে কোন হারামের দিকে মানুষকে প্রভাবিত করে তবে তা জায়েজ হবে না।

আল্লাহ ই অধিক অবগত।

Ariful Islam
Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

ইমাম আহমাদ ইবনে হাম্বল রহঃ এর নামে সালাফীদের জঘন্য আকিদা প্রচার!

মুফতী ইজহারুল ইসলাম আল-কাউসারী তথাকথিত সালাফী আকিদার অনুসারীরা ইমাম আহমাদ ইবনে হাম্বলের নামে একটি কিতাব …