হোম / নামায / মুসাফির ইমাম যদি চার রাকাত নামায পড়িয়ে ফেলে তাহলে মুসাফির ইমাম ও মুকীম মুক্তাদীর নামাযের হুকুম কী?

মুসাফির ইমাম যদি চার রাকাত নামায পড়িয়ে ফেলে তাহলে মুসাফির ইমাম ও মুকীম মুক্তাদীর নামাযের হুকুম কী?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম মুফতী সাহেব!

মুসাফির ইমাম ভুলক্রমে যোহর আসর বা ইশার নামাযে যদি চার রাকাত পড়িয়ে ফেলে তাহলে ইমাম ও মুক্তাদীর নামাযের হুকুম কী? বিস্তারিত জানানোর অনুরোধ রইল।

প্রশ্নকর্তা-রিয়াজুল ইসলাম, আসাম, ভারত।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

বিস্তারিত বুঝতে হলে নিচের শর্ত ও হুকুম খেয়াল করুন-

ইমামের নামাযের হুকুমের ১ নং সূরত

ক) ইমাম সাহেব যদি ভুলক্রমে এমনটি করে থাকে।

খ)মাঝখানের বৈঠক করে থাকে।

গ)নামায শেষে সাহু সেজদা দিয়ে থাকে।

তাহলে ইমামের নামায শুদ্ধ হয়েছে।

فلو اتم المسافر إن قعد فى القعدة الأولى، تم فرضه ولكنه أساء لو عامدا لتاخير السلام، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/128، وكذا فى البحر الرائق، باب المسافر-2/230، وكذا فى تبيين الحقائق، باب صلاة المسافر-1/511)

(قوله: لتاخير السلام)……. إذا صلى خامسة بعد القعود الأخير، يضم إليها سادسة، ويسجد للسهو، لتركه السلام…. ومسألتنا نظير الأولى لا الثانية، أفاده الرحمتى، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/128، وكذا فى تبيين الحقائق، باب صلاة المسفر-1/511)

ولا يجب السجود الا بترك واجب أو تأخيره أو تأخير ركن أو تقديمه أو تكراره أو تغيير واجب، (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الثانى عشر فى سجود السهو-1/126)

২ নং সূরত

আর যদি ইচ্ছেকৃত চার রাকাত পড়ে থাকে, সেই সাথে মাঝখানের বৈঠকও করে থাকে, তাহলে সে গোনাহগার হবে এবং উক্ত নামাযের সময় থাকলে উক্ত নামায পুনরায় পড়া ওয়াজিব। যদি সময় চলে যায় তাহলে আদায় করতে হবে না।

এমতাবস্থায় প্রথম দুই রাকাত ফরজ হবে, আর পরের দুই রাকাত নফল হিসেবে সাব্যস্ত হবে। বাকি সালাম ফিরাতে দেরী করার কারণে সাহু সেজদা দেয়া আবশ্যক হবে।

(صَلَّى الْفَرْضَ الرُّبَاعِيَّ رَكْعَتَيْنِ) وُجُوبًا

(قَوْلُهُ وُجُوبًا) فَيُكْرَهُ الْإِتْمَامُ عِنْدَنَا حَتَّى رُوِيَ عَنْ أَبِي حَنِيفَةَ أَنَّهُ قَالَ: مَنْ أَتَمَّ الصَّلَاةَ فَقَدْ أَسَاءَ وَخَالَفَ السُّنَّةَ شَرْحُ الْمُنْيَةِ (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/123، وكذا فى فتح القدير-359)

كُلُّ صَلَاةٍ أُدِّيَتْ مَعَ كَرَاهَةِ التَّحْرِيمِ تَجِبُ إعَادَتُهَا (الدر المختار، كتاب الصلاة، باب صفة الصلاة-1/457)

والوجوب مقيدا بما إذا كان الوقت صالحا حتى ان من عليه السهو فى صلاة الصبح إذا لم يسجد حتى طلعت الشمس بعد السلام الأول، سقط عنه السجود، (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الثانى عشر فى سجود السهو-1/125، وكذا فى رد المحتار، باب سجود السهو-2/79)

৩ নং সূরত

ইমাম সাহেব যদি মাঝখানের বৈঠক না করে থাকে, তাহলে তার নামাযও শুদ্ধ হয়নি। এ নামায আবার আদায় করা আবশ্যক।

(فَلَوْ أَتَمَّ مُسَافِرٌ إنْ قَعَدَ فِي) الْقَعْدَةِ (الْأُولَى تَمَّ فَرْضُهُ وَ) لَكِنَّهُ (أَسَاءَ) لَوْ عَامِدًا لِتَأْخِيرِ السَّلَامِ وَتَرْكِ وَاجِبِ الْقَصْرِ وَوَاجِبِ تَكْبِيرَةِ افْتِتَاحِ النَّفْلِ وَخَلْطِ النَّفْلِ بِالْفَرْضِ، وَهَذَا لَا يَحِلُّ كَمَا حَرَّرَهُ الْقُهُسْتَانِيُّ بَعْدَ أَنْ فَسَّرَ أَسَاءَ بِأَثِمَ وَاسْتَحَقَّ النَّارَ (وَمَا زَادَ نَفْلٌ) كَمُصَلِّي الْفَجْرِ أَرْبَعًا (وَإِنْ لَمْ يَقْعُدْ بَطَلَ فَرْضُهُ) وَصَارَ الْكُلُّ نَفْلًا لِتَرْكِ الْقَعْدَةِ  (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/128)

মুক্তাদীর বিষয়েও কয়েকটি সূরত হতে পারে। যেমন-

১ম সূরত

ইমামের সাথে পুরো নামাযই ইক্তিদা করল। তাহলে যেহেতু ইমাম শেষ দুই রাকাতে নফল আদায়কারী তাই মুক্তাদীর জন্য তার ইক্তিদা করা সহীহ হয়নি। তাই তাদের নামায শুদ্ধ হয়নি। সুতরাং উক্ত নামায সবারই পুনরায় আবার আদায় করা আবশ্যক।

فلو اتم المقيمون صلاتهم معه، فسدت، لأنه اقتداء المفترض بالمتنفل، ظهيرية: أى اذا قصدوا متابعته، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/130، وكذا فى منحة الخالق على البحر الرائق، باب المسافر-2/238)

২য় সূরত

দ্বিতীয় বৈঠকের পর মুক্তাদীগণ ইমামের ইক্তিদা ছেড়ে দিয়ে নিজে নিজে বাকি নামায আদায় করে থাকে, তাহলে তাদের নামায শুদ্ধ হয়ে যাবে।

أَمَّا لَوْ نَوَوْا مُفَارَقَتُهُ وَوَافَقُوهُ صُورَةً فَلَا فَسَادَ أَفَادَهُ الْخَيْرُ الرَّمْلِيُّ (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2/130، وكذا فى منحة الخالق على البحر الرائق، باب المسافر-2/238)

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com 

 

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

মৃত স্ত্রীকে স্বামী বা মৃত স্বামীকে স্ত্রী গোসল দিতে পারবে কি?

প্রশ্ন স্বামী মারা গেলে স্ত্রী তাকে গোসল দিতে পারবে? স্ত্রী মারা গেলে স্ত্রী তার স্বামীকে …