হোম / আকিদা-বিশ্বাস / ইসলামে রাজনীতি ও রাষ্ট্রব্যবস্থার বিধান নেই বলা কাদিয়ানী মতবাদঃ মুসলমানদের নয়!

ইসলামে রাজনীতি ও রাষ্ট্রব্যবস্থার বিধান নেই বলা কাদিয়ানী মতবাদঃ মুসলমানদের নয়!

প্রশ্ন :

জনাব, দৈনিক কালের কণ্ঠে (১৯/০২/২০১০ ঈ.) ‘ইসলাম ধর্ম রাজনীতির উর্ধ্বে’ শীর্ষক একটি প্রবন্ধ আমার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। প্রবন্ধটি পড়ে খুব আশ্চর্য হয়েছি। কেননা, এতে দাবি করা হয়েছে যে, ইসলাম ও রাজনীতি সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি বিষয় এবং ইসলাম রাজনীতির প্রসঙ্গে অনুপ্রবেশ করে না। কুরআন, হাদীস ও ইসলামী শরীয়তে রাজনীতি সম্পর্কে কোনো বিধি-বিধান নেই। মদীনা-মুনাওয়ারা ইসলামী রাষ্ট্র ছিল না; বরং তা ছিল একটি ধর্ম-নিরপেক্ষ রাষ্ট্র! আর রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কোনো ইসলামী রাষ্ট্রের নয়, তিনি ছিলেন মদীনা-রাষ্ট্রের কর্ণধার! বস্তুত ইসলামী রাষ্ট্রের কোনো ধারণা দ্বীন ও শরীয়তে নেই!’

আমার জানা মতে উপরের কথাগুলি সম্পূর্ণ ভুল, কিন্তু প্রবন্ধকার তার আলোচনায় কিছু যুক্তি-প্রমাণও উপস্থিত করেছেন। এজন্য কারো মনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হতে পারে। আমার কাছেও কিছু কথা জিজ্ঞাস্য বলে মনে হয়েছে। আশা করি, এ বিষয়ে আলোকপাত করবেন।

আরেকটি বিষয় এই যে, দৈনিক নয়াদিগন্তে (০৭/০২/২০১০ ঈ.) কাদিয়ানীদের বাৎসরিক সম্মেলনের উপর একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। তাতে বক্তারা বলেছে যে, ‘কুরআন-হাদীসের কোথাও শরীয়া আইন ও ইসলামী রাজনীতির কথা নেই এবং আহমদিয়া জামাতের আকীদা হল, ইসলাম ও রাজনীতি দু’টি সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়।’

আমার ধারণা ছিল যে, খতমে নবুওয়তের আকীদাকে অস্বীকার করা এবং ভণ্ড, মিথ্যাবাদী গোলাম আহমদ কাদিয়ানীকে নবী বলে স্বীকার করার কারণে কাদিয়ানী সমপ্রদায় কাফির। এখন মনে হচ্ছে যে, তাদের আকীদায় আরো অনেক কুফরী বিষয় রয়েছে। আমার জিজ্ঞাস্য এই যে, তারা কি প্রকৃতপক্ষেই এমন আকীদা পোষণ করে, না এটি ওই সম্মেলনের বক্তাদের নিজস্ব মত, যা তারা আহমদিয়া জামাতের উপর আরোপ করেছে? আশা করি, বি্স্তারিত লিখে আশ্বস্ত করবেন।

হাবীবুর রহমান বিন আবদুল হাকীম বাগেরহাট, খুলনা

উত্তর :

بسم الله الرحمن الرحيم

প্রত্যেক মুসলমানের ‘জরুরিয়্যাতে দ্বীন’ সম্পর্কে (অর্থাৎ দ্বীনের স্বতঃসিদ্ধ ও মৌলিক বিষয় সম্পর্কে) সহীহ ইলম ও বিশুদ্ধ ধারণা থাকা অপরিহার্য। একজন পাঠককে অন্তত এই পরিমাণ জ্ঞান ও প্রজ্ঞার অধিকারী হওয়া আবশ্যক, যাতে সে গলদ আকীদাধারী বর্ণচোরা লেখক, কলামিস্টদের মিথ্যাচার বা অপব্যাখ্যায় বিভ্রান্ত না হয়। বর্তমান সময়ে চিন্তা ও কলমের অনাচার এত প্রবল যে, কে কাকে বাধা দেয়! মিথ্যাকে প্রতিহত করার যে তিনটি উপায় ছিল, অর্থাৎ ভদ্রতা ও শরাফত, আখিরাতের ভয় এবং চার আসমানী কিতাবের সঙ্গে অবতীর্ণ পঞ্চম বস্ত ‘আলহাদীদ’ (বা ডাণ্ডা), কোনোটাই তো কার্যকর নেই। প্রথম দুই বস্তুর কথা তো বলাই বাহুল্য। এসব থেকে পাকছাফ থাকাই প্রগতিশীলতা ও মুক্তবুদ্ধির প্রথম শর্ত। অতএব আমাদের বুদ্ধিজীবী সমপ্রদায়ের নিকট এসবের আশা করাও অন্যায়। আর শাসনের দণ্ড তো আজকালকার দিনে থাকে আল্লাহর দুশমন-শ্রেণীর হাতে। অতএব তাদের লেখালেখিতে যদি আপনি এ ধরনের কুফরিয়াত দেখেন, এমনকি তাতে যুক্তি-প্রমাণ এবং হাওয়ালা-উদ্ধৃতিও দৃষ্টিগোচর হয় তাতেও আশ্চর্য হওয়ার কোনো কারণ নেই। এই সমপ্রদায়ের লোকেরা তো খণ্ড ও পৃষ্ঠা নম্বরসহ মিথ্যাচার করে থাকে।

আপনি যে প্রবন্ধ ও প্রতিবেদনের কথা বলেছেন তা এখন আমার সামনে রয়েছে। আমি তো এখানে কোনো যুক্তি-প্রমাণ দেখতে পাচ্ছি না, শুধু কতগুলি অসার দাবির সমষ্টি। সেগুলোও স্ববিরোধিতায় পূর্ণ! আর ‘প্রমাণ’ হিসেবে কিছু থাকলে সেটিও অবাস্তব ও কল্পনাপ্রসূত। ‘যুক্তি’ বা ‘প্রমাণ’ বলা যায় এমন কিছুর অস্তিত্ব এখানে নেই।

লেখকের স্ববিরোধিতার একটি দৃষ্টান্ত লক্ষ করুন :

সে একদিকে দাবি করেছে যে, ইসলামে রাজনীতির বিষয়ে কোনো বিধান নেই, অন্যদিকে দুইবার রাজতন্ত্রকে ইসলামবিরোধী বলেছে। প্রশ্ন এই যে, ইসলামে যদি রাজনীতি সম্পর্কে কোনো কিছুই না থাকে তাহলে ইসলামে রাজতন্ত্র নিষিদ্ধ হওয়ার সিদ্ধান্ত সে কোথায় পেল?! উল্লেখিত প্রবন্ধ ও প্রতিবেদন দু’টোতেই মদীনা-সনদের উল্লেখ দেখা যাচ্ছে। তারা এই ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছে যে, মদীনা-সনদের কোথাও মদীনার রাষ্ট্র-ব্যবস্থা ইসলাম হবে বা তা শরীয়া আইন অনুযায়ী পরিচালিত হবে এমন কথা বলা হয়নি। প্রশ্নোক্ত প্রবন্ধে তো নির্লজ্জভাবে এই দাবি করা হয়েছে যে, মদীনা ছিল একটি ধর্ম-নিরপেক্ষ রাষ্ট্র! দেখুন, মদীনা-সনদে পরিষ্কার বলা আছে-

وإنه لا يحل لمؤمن أقر بما في هذه الصحيفة، وآمن بالله واليوم الآخر أن ينصر محدثا أو يؤويه، وإن من نصره أو آواه، فإن عليه لعنة الله وغضبه يوم القيامة، ولا يؤخذ منه صرف ولا عدل وإنه مهما اختلفتم فيه من شيء فإن مرده إلى الله وإلى محمد

কিছুদূর যেয়ে ইহুদীদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দফাগুলোতে বলা হয়েছে-

وإنه ما كان بين أهل هذه الصحيفة من حدث، أو اشتجار يخاف فساده فإن مرده إلى الله وإلى محمد رسول الله (صلى الله عليه وسلم) وإن الله على أتقى ما في هذه الصحيفة وأبره.

(মাজমূআতুল ওয়াছাইকিছ ছিয়ছিয়্যাহ লিল‘আহদিন নববী ওয়াল খিলাফাতির রাশিদাহ, ড, হামীদুল্লাহ পৃ. ৬১, ৬২; আল মুজতামাউল মাদানী ফী ‘আহদিন নুবুওয়াহ, ড. আকরাম জিয়া আল-উমারী পৃ. ১২১, ১২২) উপরোক্ত দু’টি গ্রন্থে এই ‘সনদে’র মূল সূত্রগুলো দেওয়া আছে।

গিয়োমকৃত সীরাতে ইবনে হিশামের ইংরেজি অনুবাদ যা (The life of Muhammad (a translation of Ibn-Ishaq’s Sirat Rasulallah) নামে প্রকাশিত, তার ২৩১-২৩৩ পৃষ্ঠায় এই সনদটি বিদ্যমান রয়েছে। তাতে উপরোক্ত দফাগুলির যে তরজমা করা হয়েছে তা হুবহু তুলে দিচ্ছি-

It shall not be lawful to a believer who holds by what is in this document and believes in God and the last day to help an evil-doer or to shelter him. The curse of God and His anger on the day of resurrection will be upon him if he does, and neither repentance nor ransom will be received from him. Whenever you differ about a matter it must be referred to God and to Muhammad. If any dispute or controversy likely to cause trouble should arise, it must be referred to God and to Muhammad the apostle of God. God accepts what is nearest to piety and goodness is this document.

ইসলামিক ফাউণ্ডেশন থেকে প্রকাশিত সীরাতে ইবনে হিশামের বাংলা অনুবাদ থেকে উপরোক্ত দফাগুলির তরজমা তুলে দিচ্ছি-

‘২৩. আর যে মুমিন ব্যক্তি এই লিপির বক্তব্য স্বীকার করে নিয়েছে আর সে আল্লাহ ও শেষ দিবসের প্রতি বিশ্বাস পোষণ করে, তার জন্য কোন নতুন ফিতনা সৃষ্টিকারীকে সাহায্য করা বা তাকে আশ্রয় দান বৈধ হবে না। যে ব্যক্তি তাকে সাহায্য করবে বা আশ্রয় দেবে, তার প্রতি আল্লাহর লা’নত ও গযব হবে কিয়ামতের দিনে এবং তার থেকে ফিদয়া (মুক্তিপণ) বা বদলা গ্রহণ করা হবে না।’ ২৪. আর যখন তোমাদের মধ্যে কোন বিরোধ উপস্থিত হবে, তখন আল্লাহ তাআলা ও মুহাম্মাদ (সা.)-এর নিকট তা উত্থাপন করতে হবে।’ ৪৬. ‘এই চুক্তিনামা গ্রহণকারী পক্ষসমূহের মধ্যে যদি এমন কোন নতুন সমস্যার বা বিরোধের উদ্ভব হয়-যা থেকে দাঙ্গা বেঁধে যাওয়ার আশংকা দেখা দেয় তাহলে তা আল্লাহ তাআলা এবং আল্লাহর রাসূল মুহাম্মাদ (সা.)-এর নিকট মীমাসাংর্থে উত্থাপিত করতে হবে। … (সীরাতুন নবী (সা.) খণ্ড ২, পৃষ্ঠা ১৭৯-১৮০)

এই ‘সনদে’ কি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের বিধানকে সর্বোচ্চ আইন হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি? আর এমন সুস্পষ্ট ঘোষণা কি কোনো ধর্ম-নিরপেক্ষ সমাজের সংবিধানে থাকতে পারে?

সহীহ হাদীসে রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দ্ব্যর্থহীনভাবে বলেছেন-

لا يجتمع دينان في جزيرة العرب

অর্থ : জাযিরাতুল আরবে দুই দ্বীন একত্র হবে না।-মুয়াত্তা ইমাম মালিক পৃষ্ঠা ৩৬০

এগুলো কি প্রমাণ করে যে, মদীনা ধর্ম-নিরপেক্ষ রাষ্ট্র ছিল?

গোড়ার কথা হচ্ছে, সর্বযুগের বাতিলপন্থী লোকেরা হীনম্মন্যতার শিকার হয়ে থাকে। আমার ধারণা, বর্তমান যুগের বাতিলপন্থীদের মাঝে এই ব্যাধি আরো প্রকট। এজন্য তারা তাদের লালিত কুফরী চিন্তাগুলোকে নিজেদের পক্ষ থেকে বলার মতো সাহস সঞ্চয় করে উঠতে পারে না। ফলে কুরআন-হাদীস, সীরাত-তারীখ, ফিকহ-তাফসীর এবং ইসলামী আকাইদের মধ্যে বিকৃতি ও অপব্যাখ্যার মাধ্যমে কিংবা মনগড়া কথাবার্তা তৈরি করে তা দ্বীনের নামে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। তারা এটুকুও উপলব্ধি করে না যে, এতে তাদের প্রতারণা ও মিথ্যাচার দ্রুত প্রকাশিত হয়ে পড়বে। এটা ছিল এক প্রসঙ্গ।

দ্বিতীয় প্রসঙ্গ, অর্থাৎ কাদিয়ানী সম্পর্কে আপনার প্রশ্ন থেকে অনুমিত হচ্ছে যে, এ বিষয়ে আপনার অধ্যয়ন বেশ সীমিত। কারণ মির্জা কাদিয়ানী ও তার অনুসারীদের কুফরী শুধু এক বিষয়ে নয়, তাদের কুফরিয়াতের তালিকা অনেক দীর্ঘ। এখন যেহেতু সিয়াসত সম্পর্কে কথা হচ্ছে তাই এ বিষয়ে শুধু একটি উদ্ধৃতি আপনাকে শোনাচ্ছি।

মির্জা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী লিখেছে যে,

‘আমি সত্য সত্য বলছি, অনুগ্রহদাতার অকল্যাণ কামনা হচ্ছে হারামযাদা ও চরিত্রহীন লোকের কাজ। তাই আমার ধর্ম, যা আমি বারবার প্রকাশ করেছি, তা এই যে, ইসলামের দু’টি অংশ : এক. খোদা তাআলার আনুগত্য। ২. ওই সরকারের আনুগত্য, যে সমাজে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা করেছে এবং জালিমদের হাত থেকে আমাদেরকে তার ছায়াতলে আশ্রয় দান করেছে। সেই সরকার হচ্ছে ব্রিটিশ সরকার। … অতএব আমরা যদি বৃটিশ সরকারের অবাধ্যতা করি তাহলে প্রকারান্তরে ইসলাম এবং খোদা ও রাসূলের অবাধ্যতা করা হয়।

(‘‘গওরমেন্ট কী তাওয়াজজুহ কে লায়েক’’ মুলহাকা ‘‘শাহাদাতুল কুরআন’’ রচনা : মির্জা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী পৃ. জিম-দাল রূহানী খাযাইন খণ্ড ৬, পৃ. ৩৮০-৩৮১)

উপরোক্ত উদ্ধৃতিতে দেখতে পাচ্ছেন যে, গোলাম আহমদ কাদিয়ানীর মতে সরকারের আনুগত্য ইসলামের অংশ। যদি তা হয় সাম্রাজ্যবাদী ইংরেজ সরকার।

বর্তমান আহমদিয়া সমপ্রদায় যদি সিয়াসতকে ইসলামের সঙ্গে সম্পর্কহীন বলতে চায় তো বলতে পারে, কিন্তু অন্তত তাদের নেতার খাতিরে পশ্চিমা পিতৃকুলের আনুগত্য ও তল্পিবহনকে ‘ইসলামের অংশ’ বলা উচিত!!! (নাউযুবিল্লাহ)

ইহুদী ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তির সঙ্গে কাদিয়ানী সমপ্রদায়ের গাঁটছড়া বাঁধার কাহিনী যদি জানতে হয় তাহলে জনাব বশীর আহমদ ছাহেবের রচিত Ahmadiya Movement: British jewish connections বা তার উর্দূ অনুবাদ ‘তাহরীকে আহমদিয়্যত ইহুদী ও সামরাজী গঠ্জোড়’’ পড়ে দেখতে পারেন। অনুবাদ-গ্রন’টির পৃষ্ঠাসংখ্যা ৯৪৮।

আপনার প্রশ্নের উত্তরে আপাতত এই কয়েকটি কথাই নিবেদন করলাম।

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

মাওলানা আব্দুল মালেক দা.বা.

প্রধান উপদেষ্টা-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

আমীনুত তালীম– মারকাযুদ দাওয়া আলইসলামিয়া ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

হালাল ও হারাম মিশ্রিত সম্পদের মালিকের কাছ থেকে হাদিয়া গ্রহণের বিধান

প্রশ্ন মুফতী সাহেব, আসসালামু আলাইকুম। আমি একজন ইন্টার্নী ডাক্তার, ঢাকা মেডিকেল কলেজে কর্মরত আছি।  আমার কিছু প্রশ্ন ছিল, আশা করি উত্তর প্রদান করে বাধিত করবেন। নামঃ সালেহ মোহাম্মদ শোয়াইব দেশঃ বাংলাদেশ বিষয়ঃ ব্যাঙ্ক লোন নিয়ে বাড়ি …